• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
বিলাইছড়িতে ব্যাটমিন্টন প্রতিযোগিতার উদ্বোধন                    কাপ্তাই ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এসপি মার্মার স্মরণ সভা                    বরকলে মহিলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটি গঠন                    পাহাড় ধসে নিহত ১৯ পরিবারের সদস্যদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান                    জুরাছড়িতে কোন প্রকার সন্ত্রাসীদের আস্তানা করতে দেওয়া হবে না                    ক্যাডেট কলেজ কল্যাণ ট্রাষ্টের উদ্যোগে বালুখালী ইউপি’র গরীব ও দুস্থ মানুষের শীতবস্ত্র বিতরণ                    আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসে রাঙামাটিতে সনাকের আলোচনা সভা                    গুইমারায় বিপুল অস্ত্রশস্ত্রসহ ইউপিডিএফ’র ৬ কর্মী আটক                    ৮ ডিসেম্বর পুরোপুরি শত্রু মুক্ত হয় রামগড়                    জুরাছড়িতে কৃষকলীগের কমিটি বিলুপ্তি ঘোষনা!                    টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান হিসেবে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপির যোগদান                    বিলাইছড়িতে অঘোষিত ‘অবরোধ’!                    জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস উপলক্ষে কাপ্তাইয়ে আলোচনা সভা                    খাগড়াছড়ির বর্ষীয়ান রাজনৈতিক এসএম শফি অসুস্থ, দোয়া কামনা                    বরকলে জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস পালিত                    বন উজাড়ের কারণে পাহাড় ধ্বসের মত ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়-বৃষকেতু চাকমা                    পানছড়িতে নতুন বিনোদন কেন্দ্র মায়াবিনী হ্রদ                    কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি-কে শরণার্থী ও উদ্বাস্তু পূর্নবাসন টাস্কফোর্সের চেয়াম্যান নিয়োগ                    টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়ায় প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের কৃতজ্ঞতা                    জুরাছড়িতে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের আরও ৫২জন নেতাকর্মীর পদত্যাগ                    রাঙামাটি প্রাণীসম্পদ দপ্তর হতে স্প্রে মেশিন বিতরণ                    
 

কাপ্তাইয়ে রেশম চাষ করে ১৫ দিনেই ভাগ্য বদল

নজরুল ইসলাম লাভলু,কাপ্তাই(রাঙামাটি) : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 30 Apr 2017   Sunday
no

no

রেশম চাষ করে মাত্র ১৫ দিনেই ভাগ্য বদলে দিয়েছে রাঙামাটির কাপ্তাইয়ে বারঘোনা তনচংগ্যা পাড়ার রেশম চাষীদের।


লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী রেশম গুটি (যা থেকে সুতা তৈরি করা হয়) উৎপাদন করে চাষীরা বেজায় খুশি। তনচংগ্যা পাড়ার কয়েক চাষীকে দিয়ে প্রাথমিক ভাবে রেশম চাষ শুরু করা হয়। এতে তারা সফলও হয়েছে। উৎপাদিত রেশম গুটি দেখে অনেকেই রেশম চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। ফলে রেশম শিল্প পুনরায় তার হারানো গৌরব ফিরে পাওয়ার উজ্জ্বল সম্ভবনা দেখা দিয়েছে।


“রেশম চাষ বদলে দিতে পারে পার্বত্যবাসীর জীবনধারা” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে কাপ্তাইয়ের চন্দ্রঘোনা আঞ্চলিক রেশম গবেষণা কেন্দ্র ৭৫০ জন পাহাড়ি-বাঙ্গালি বেকার যুবক যুবতীকে স্বাবলম্বী করে গড়ে তুলতে এক প্রসংশনীয় উদ্যোগ নিয়েছে। ইতিমধ্যে সকল চাষীর প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করা হয়েছে। ২০০৯-২০১২ সাল পর্যন্ত তিন বছর মেয়াদি এ প্রকল্পে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল ৩ কোটি ত্রিশ লাখ টাকা। পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের আর্থিক সহায়তায় “প্রজেক্ট অন সেরিক্যালচার রির্সাচ এন্ড টেকনোলজি ডেসিমিনেসন ইন হিলি ডিস্ট্রিকস্” নামের এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সষ্টিটিউটের মাধ্যমে।

 

ইতিমধ্যে প্রকল্পের আওতায় রাঙামাটি জেলাধীন কাপ্তাইয়ের তনচংগ্যা পাড়া রাজস্থলী উপজেলার শফিপুর, ঝুরঝুরিপাড়া, নয়াঝিরিপাড়া ও খাগড়াছড়ি জেলাধীন পানছড়ি উপজেলার হাতিমারায় মোট ১০০ জন চাষীকে মাথাপিছু ২০০টি করে উন্নত জাতের তুঁত চারা প্রদান করা হয়। ওই চারাগুলি বর্তমানে উৎপাদনশীল হয়েছে। এসব চাষীদের মধ্যে ১৫জনকে আদর্শ পলুপালনকারী হিসাবে তৈরী করা হয়েছে। এসব চাষীদের পলুঘর, হাইগ্রোমিটার, ডালা, চন্দ্রকী সহ পলুপালন সামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।


টেষ্টকেস হিসেবে ১৫ জন রেশম চাষীকে ২৫টি ডিম থেকে উৎপাদিত ১০ দিন বয়সী পলু (রেশম পোকা) সরবরাহ করা হয়েছে। সরবরাহকৃত পলু থেকে ২২ কেজি রেশম গুটি উৎপাদিত হয়েছে। এক্ষেত্রে চাষীরা ৫০ অথবা ১০০ ডিম থেকে উৎপাদিত পলু নিয়ে গুটি উৎপাদন করতে পারবে। অর্থ্যাৎ তারা যত বেশি ডিম থেকে উৎপাদিত পলু নিবে ততবেশি রেশম গুটি উৎপাদন করতে পারবে। এভাবে বছরে ৪ বার রেশম গুটি উৎপাদন করা যাবে। ১৫ দিন পর্যন্ত গুটি উৎপাদন না হওয়া পর্যন্ত রেশম গবেষণা কেন্দ্রের কর্মকর্তাগণ সার্বিক সহযোগীতা ও পর্যবেক্ষন করে যাবে। কর্মকর্তাদের সার্বিক সহযোগীতায় চাষীরা পলুপালন করে আশানুরূপভাবে গুটি উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক গুটি উৎপাদন করায় এলাকার চাষীরা বেজায় খুশি।

 

উৎপাদিত রেশম গুটি বিক্রিতে তাদের তেমন কোন ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে না। রেশম গবেষণা কেন্দ্র কর্তৃপক্ষই উৎপাদিত গুটি কেজি ৩০০ টাকা হারে তাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করছে। ঝামেলামুক্ত এবং বিনা পূঁজিতে (মুলধন) রেশম কীটের বীজ, পলুঘর সহ বিভিন্ন সামগ্রী পাওয়ায় অনেকেরই রেশম চাষের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি হচ্ছে। এতে অত্র অঞ্চলে রেশম চাষের মাধ্যমে রেশম শিল্পের হারানো ঐহিত্য ফিরে পাওয়ার ব্যাপারে অনেকেই আশাবাদী হয়ে উঠেছে।

 

এব্যাপারে তনচংগ্যা পাড়ার চাষী কলমপতি তনচংগ্যা, ধনপতি তনচংগ্যা, রূপালী তনচংগ্যার সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা রেশম চাষ করে বেশ লাভবান হয়েছে। আগামীতে আরো বেশি গুটি উৎপাদনের জন্য বেশি বেশি পলুপালন করার আগ্রহ দেখিয়েছে। এ রেশম চাষ করে তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন করতে সক্ষম হবে বলে তারা জোর দিয়ে বলেন।

 

এ বিষয়ে প্রকল্প কর্মকর্তা কামনাশীষ দাশের দৃষ্টি আর্কষণ করা হলে তিনি বলেন, এলাকার চাষীরা রেশম চাষে বেশ উৎসাহি এবং এ এলাকার আবহাওয়া রেশম চাষে বেশ উপযোগী হওয়ায় আরো একটি প্রকল্পের প্রস্তাব করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে। প্রস্তাবটি পাস হলে অত্র এলাকার মানুষ রেশম চাষের মাধ্যমে অদূর ভবিষ্যতে আরো বেশি সাবলম্বি হয়ে উঠবে।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

 

 

এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ