• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
মহালছড়িতে ত্রিপুরা স্টুডেন্ট কাউন্সিলের সদস্যদের আর্থিক অনুদান প্রদান করেছে সেনাবাহিনী                    রাঙামাটির দুর্গা মাতৃ মন্দিরে জেলা পরিষদের শব্দযন্ত্র প্রদান                    কাপ্তাই ৫ আর ই ব্যাটালিয়নের ৪৩তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন                    রাঙামাটিতে কৃষক মাঠ স্কুল বিষয়ে ওরিয়েন্টেশন কর্মসূচি উদ্বোধন                    বরকল আওয়ামীলীগের ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন                    রাঙামাটিতে ঐতিহ্যবাহী বিচার ব্যবস্থার উন্নয়ন শীর্ষক পরামর্শক সভা অনুষ্ঠিত                    খাগড়াছড়িতে সরকারি দলের ফরম তুললেন কংজরী-রণবিক্রম-জুয়েল এবং অপু                    কাপ্তাই হ্রদে অভিযানে ১১বোটসহ ১৮শ মিটার জাল জব্দ                    সুবলং হরি মন্দিরে জেলা পরিষদের বাদ্যযন্ত্র প্রদান                    কাপ্তাইয়ে যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে যুব সমাবেশ                    বসন্ত সমবায় বৌদ্ধ বিহারে ২৪তম কঠিন চীবর দান সম্পন্ন                    ঢাকায় নানান আয়োজনে বিপ্লবী মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ৩৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত                    কতুকছড়িতে যৌথ অভিযানে চাদা আদায়ের রশিদ বইসহ দুজনকে আটক                    পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নে সক্রিয় আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহ্বান সন্তু লারমার                    বরকলে এমএন লারমার ৩৫তম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত                    জুরাছড়িতে এম এন লারমার মৃত্যূ বার্ষিকী পালিত                    পানছড়ি শান্তিপুর অরণ্য কুটিরে ১২তম কঠিন চীবরদান অনুষ্ঠিত                    রাঙামাটিতে পিস্তলসহ যুবক আটক                    মহালছড়িতে এমএন লারমা মৃত্য বার্ষিকী পালিত                    রাঙামাটির লংগদুতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে জে এস এস (এম এন লারমা ) গ্রুপের এক কর্মী নিহত                    রাঙামাটি লংগদু আর্য গিরি বন বিহারে কঠিন চীবর দানোৎসব সমাপ্ত                    
 

আরবের মরু অঞ্চলের খেজুর এখন কাপ্তাইয়ে

নজরুল ইসলাম লাভলু, কাপ্তাই (রাঙামাটি) : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 23 Apr 2017   Sunday

সৌদি আরবের মরুভূমি অঞ্চলের খেজুর উৎপাদনে সফল হয়েছে কাপ্তাইয়ের রাইখালী কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। ফলে এদেশের আবহাওয়া উপযোগী মরু অঞ্চলের খেজুর উৎপাদনের দ্বার খুলে দিয়েছে।

 

ইতিমধ্যে অনেকে ব্যক্তি উদ্যোগে খেজুর বাগান সৃজনের জন্য চারা সংগ্রহের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এতে বাণিজ্যিকভাবে খেজুর উৎপাদনের ব্যাপক সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। দেশে সর্ব প্রথম বাণিজ্যিকভাবে মরুর খেজুর উৎপাদন করে সফল হয়েছে ময়মনসিংহ জেলাধীন ভালুকার আব্দুল মোতালেবের খেজুর বাগানে। এর পরেই কাপ্তাইয়ের রাইখালী কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের এ খেজুর উৎপাদন সম্ভব হল।


রাইখালী কৃষি গবেষণা কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮-০৯ সালে কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা সৌদি আরব থেকে সরাসরি কয়েক’শ খেজুরের বীজ নিয়ে এসে গবেষণার কাজ সম্পন্ন করে সেগুলোর চারা মাঠ পর্যায়ে রোপন করে। কয়েক’শ চারার মধ্যে এ বছর মাত্র ২০টি গাছে ফুল আসে। এর মধ্যে কয়েকটি গাছে প্রচুর পরিমাণে ফল ধরে। যার আকার ও আকৃতি খুবই আর্কষণীয়। ফলগুলো লম্বায় ৪ থেকে ৪ দশমিক ৬০ সেঃমিঃ লম্বা হয় এবং প্রস্থে ২ থেকে ২ দশমিক ৫০ সেঃমিঃ হয়। একেকটি খেজুরের ওজন ১২ থেকে ১৫ গ্রাম এবং বীজের ওজন প্রায় আধা গ্রাম হয়। এ খেজুরের আদিনিবাস মেসোপটেমিয়া। এর উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম ফিনিক্স ডেকটাইলিফেরা (Phoenix dactylifera)।

 


এ খেজুরের স্ত্রী পুরুষ উভয় গাছে ভিন্ন ভিন্ন ফুল আসে। ফলের ভালো আকার আকৃতির জন্য পুরুষ ফুলের রেণু খুবই প্রয়োজনীয়। বীজের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করলে স্ত্রী গাছ পাওয়ার হার খুবই কম। তাই খেজুর গাছের গোড়ার চারপাশের সাকার বা তেউড় আলাদা করে খেজুরের বংশ বিস্তার করাই উত্তম। এতে মাতৃ গুণাগুণ বজায় থাকে। তেউড় আলাদা করার মৌসুম হল বর্ষাকাল। চারার ব্যাস ১০ সেঃমিঃ এবং ওজন ১৫-২০ কেজি হলে বসানোর উপযুক্ত হয়। তেউড় বসানোর আগে বেশ কিছু পাতা কেটে দেওয়া হয়। এসব চারায় সাধারণ শিকড় থাকে না। তাই ছোট তেউড় আলাদা করে নিয়ে নার্সারীর কেয়ারীতে বসিয়ে সবল করে শিকড় তৈরি করে নেওয়া হয়।

 

গাছ বসানোর ৪-৫ বছর পর ফুল এলেও ভালো ফলনের জন্য আরো ২-৩ বছর কোন কোন ক্ষেত্রে ৬-৭ বছর লেগে যায়। ফুল ফোটা থেকে শুরু করে ফল পাঁকা পর্যন্ত সময় লাগে প্রায় ১৮০-১৯০ দিন। ফল পাঁকার সময় অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত এর জন্য খুবই ক্ষতিকর। মূলত দেশী খেজুর শেষ হওয়ার ২-৩ মাস পর আরবের খেজুরগুলো পাঁকতে শুরু করে। এদেশের আবহাওয়া অত্যন্ত চমৎকার বিধায় সৌদির খেজুর ব্যাপক ভাবে চাষাবাদ করা যেতে পারে।


এ খেজুর পুষ্টিমানে ভরপুর। ভিটামিন ‘এ ও বি’ সমৃদ্ধ এ খেজুরের প্রতি ১শ’ গ্রাম শাঁসে ২৮২ ক্যালরি শক্তি পাওয়া যায়। ফলের মধ্যে রয়েছে অধিক পরিমাণ খনিজ লৌহ। প্রতি ১শ’ গ্রাম শাঁসে রয়েছে শতকরা ২৪ দশমিক ১ ভাগ জলীয় রস, প্রোটিন ৩ ভাগ, øেহ ২ ভাগ, খনিজ ১ দশমিক ৩ ভাগ, আঁশ ২ দশমিক ১ ভাগ, শর্করা ৬৬ দশমিক ৩ ভাগ, ক্যালসিয়াম ৭ ভাগ, ফসফরাস ৮ ভাগ, লৌহ ১০ দশমিক ৬ ভাগ।


এ খেজুর চাষের ক্ষেত্রে বাড়তি কোন পরিচর্যার প্রয়োজন হয় না। তবে ফুল থেকে ফল নামানোর সময়টুকু নিবিড় ভাবে পর্যবেক্ষণ করা দরকার। কারণ ফল কাটার মৌসুমে আমাদের দেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বেশী থাকে। কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের সূত্রে জানা যায়, আরবের খেজুর নিয়ে তারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তারা আশা করছেন গবেষণার মাধ্যমে খুবই শীঘ্রই আরবের খেজুর এদেশের মাটিতে জাত হিসাবে অবমুক্তায়িত করা সম্ভব হবে। এতে অল্প সময়ে কম খরচে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মরুর খেজুর চাষ করা সম্ভব হবে।

 

এক সময় আসবে সেসময় সৌদি আরব থেকে আর খেজুর আমদানীর প্রয়োজন হবে না। সূত্র আরো জানায়, ইতিমধ্যে পাহাড়ী অঞ্চলে চাষাবাদের জন্য অনেকেই ইতিমধ্যে চারা সংগ্রহের আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। এ খেজুর চাষে ব্যাপক অর্থনৈতিক সম্ভবনা রয়েছে বলে গবেষণা কেন্দ্র সূত্র জানায়।

 

এদিকে খেজুর গাছে ফল আসলেও নতুন করে কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছে বলে কৃষি গবেষণা কেন্দ্রে সদ্য যোগদানকারী বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডঃ আলতাফ হোসেন জানান।

 

এসব সমস্যার মধ্যে বিশেষ করে খেজুর গাছে পচন ধরে গাছ মরে যাওয়ার মত সমস্যাটি প্রকট আকারে দেখা দিয়েছে। তিনি বলেন, এর কারন উদঘাটনের জন্য নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকা হেড অফিসে পাঠানো হয়েছে। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে সঠিক জমি নির্বাচন না করায় গাছের এ পচন রোগ দেখা দিয়েছে।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিঅার.

আর্কাইভ