• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
খাগড়াছড়িতে শিশুতোষ দ্বি-ভাষিক বই বিষয়ক স্থানীয় পর্যায়ে অধিপরামর্শ সভা                    রাঙামাটিতে ব্লাষ্টের উদ্যোগে এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে নেটওয়ার্কিং সভা                    রাঙামাটি আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ঊষাতন তালুকদার কাপ্তাই থেকে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু                    লংগদুতে আওয়ামীলীগ প্রার্থী দীপংকর তালুকদারের প্রচারনা                    বাঘাইছড়িতে বিএনপি প্রার্থী মনিস্বপন দেওয়ানের গনসংযোগ ও জনসভা                    কাপ্তাইয়ে দীপংকর তালুকদারের সমর্থনে প্রচার কার্যক্রম শুরু                    উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকার কোন বিকল্প নেই-কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা                    ব্লাস্ট রাঙামাটি ইউনিটের উপকারভোগীদের সাথে এক পুনঃপর্যালোচনা সভার আয়োজন                    রাঙামাটিতে জেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল                    পাহাড়ে চাকুরী হবে মেধার মূল্যায়নের মাধ্যমে-মনিস্বপন দেওয়ান                    পাহাড়ে সাম্প্রদায়িক-সম্প্রীতি বজায় ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার আহবান দীপংকর তালুকদারের                    বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী জুঁই চাকমার ১৮ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষনা                    জনবিছিন্ন প্রার্থীদের ভোটারদের প্রতি বর্জন করারআহ্বান দীপংকর তালুকদারের                    খাগড়াছড়িতে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রনে এডভোকেসী সভা                    খাগড়াছড়িতে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ                    খাগড়াছড়িতে মূলধারার তাবলীগের সংবাদ সম্মেলন,তিন দফা দাবী                    এএফ মুজিবুর রহমান ফাউন্ডেশনের ৯১ লক্ষ টাকায় মোনঘর শিশু সদনে ছাত্রী নিবাসের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন                    মহালছড়ির মিলনপুর বন বিহারে ধর্মীয় ও শিক্ষা সহায়ক বই বিতরণ সেনাবাহিনীর                    বাঘাইছড়ি থেকে দীপংকর তালুকদারের নৌকা প্রতীকের আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু                    নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতায় আসলে পাহাড়ে চলমান রক্তক্ষয়ী সংঘাত বন্ধে জোরালো পদক্ষেপ নেবে                    রাঙামাটি আসনে প্রতিদ্বন্ধি ৬ প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ,সিংহ প্রতীক পেলেন উষাতন তালুকদার                    
 

বান্দরবানে তিন দিন ব্যাপী ঐতিহ্যবাহী রাজপূণ্যাহ মেলা শুরু

বিশেষ প্রতিনিধি,বান্দরবান : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 21 Dec 2016   Wednesday

বুধবার থেকে বান্দরবানে তিন দিন ব্যাপী ১৩৯ তম রাজপূণ্যাহ মেলা শুরু হয়েছে।

 

ঐতিহ্যবাহী বোমাং রাজার মাঠে অনুষ্ঠিত রাজপূন্যাহ মেলার উদ্ধোধন করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

 

১৭তম রাজা বোমাংগ্রী উ চ প্রু, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন এমপি, সেনাবাহিনীর চট্টগ্রাম এরিয়ার মেজর জেনারেল মো: জাহাঙ্গীর কবির তালুকদার, বান্দরবান জোন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ যুবায়ের সালেহীন, চট্টগ্রাম রেঞ্জের পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি মো: সাখাওয়াত হোসেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য স্নেহ কুমার চাকমা, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা, রাঙ্গামাটির বৃষকেতু চাকমা, খাগড়াছড়ির কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়। এছাড়া আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, প্রশাসনের কর্মকর্তা, হেডম্যান (মৌজা প্রধান), কার্বারীসহ (পাড়া প্রধান) অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

এর আগে দুপুরের দিকে রাজ দরবার থেকে রাজার পাইক, পেয়াদা ও সৈন্যসহকারে আগত অতিথিদের নিয়ে ১৭তম রাজা বোমাংগ্রী উ চ প্রু মঞ্চে আগমন করেন। সেখানে বোমাং রাজাকে ফুল ছিটিয়ে অভ্যর্থনা জানানো হয়। পরে রাজকীয় অনাড়ম্বর এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে খাজনা আদায় অনুষ্ঠান শুরু হয়। দূর-দুরান্ত থেকে আসা পাহাড়িদের হাতে বিভিন্ন ধরণের উপঢৌকন। কারো হাতে দেশী মোরগ, কারো হাতে বিনি চালের পিঠা। আবার কারো হাতে দেশীয় তৈরি চোলাই মদ। এতসব উপঢৌকন লোকেরা এনেছেন রাজাকে উদ্দেশ্য করে।

 

এসময় বোমাং রাজার মাঠে তখন হাজারো মানুষের ভিড়ের সমাগম ঘটে। দেশি-বিদেশী পর্যটক ছাড়াও স্থানীয় লোকেরা ভিড় জমিয়েছেন রাজ খাজনা আদায় অনুষ্ঠান দেখতে। অনুষ্ঠানটি দেশি-বিদেশী পর্যটক ও স্থানীয়দের উপস্থিতি মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। এ রাজ পুর্ন্যামেলা আগামী ২৩ ডিসেম্বর পর্ষন্ত চলবে।

 

এদিকে রাজপূণ্যাহ মেলাকে ঘিরে বসেছে বাহারী রকমের দোকান, নাগরদোলা, মৃত্যুকূপ, পুতুল নাচ, যাত্রা, সার্কাস।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, তিন পার্বত্য জেলার মতো সৌন্দর্য্য দেশের আর কোথাও নেই। আজ ও কাল হোক এই সৌন্দর্য্যকে কাজে লাগাতে হবে। পার্বত্য অঞ্চলে যে ট্রাডিশন রয়েছে তা বাঁচিয়ে রাখতে হবে। এই অঞ্চলে যে ভূমিকর প্রথা চালু আছে, তা চলমান থাকবে।

 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং বলেন, আজকের এই অনুষ্ঠানে হাজারো মানুষের সমাগম ঘটেছে। পার্বত্য শান্তি চুক্তির আগে এমন সমাগম কল্পনা করা যায় না। এই সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ সমাগম ঘটার পেছনে আছে জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র অবদান। তিনি চেয়েছেন বলেই পাহাড়ে শান্তি বইছে। 

 

সভাপতি বক্তব্যে বোমাং রাজা উ চ প্রু বলেন, এই অঞ্চলে পাহাড়ি-বাঙ্গালী সবাই শান্তি-সম্প্রীতিতে বসবাস করতে হবে। শান্তির জন্য যা যা করা দরকার সবকিছু করা হবে। তিনি আরো বলেন, বিদেশের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেছি, এদেশের মতো মাটি কোথাও দেখিনি। ১২ মাস উৎপাদন হয়, চাষ করা যায়। এছাড়া তিনি আগত অতিথিদের শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

 

উল্লেখ্য, প্রায় ১৭৬৪ বর্গমাইল এলাকার বান্দরবানের ৯৫টি, রাঙামাটির রাজস্থলি ও কাপ্তাই উপজেলার ১৪টি মৌজা নিয়ে বান্দরবান বোমাং সার্কেল। রাজপূণ্যাহ অনুষ্ঠান প্রবর্তিত হয় ১৮৭৫ সালে। বোমাং সার্কেলের নবম রাজা সাক হৃ ঞো এর প্রবর্তন করেন। সেই থেকে বোমাং সার্কেলে ধারাবাহিকভাবে রাজপূণ্যাহ অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে আসছে। বছরের একটি দিনে রাজ কোষাগারে খাজনা আদায়কে কেন্দ্র করে বসে রাজপূণ্যাহ মেলা।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ