• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রাঙামাটিতে সপ্তাহব্যাপী দেশ বরেণ্য চিত্র শিল্পীদের নিয়ে আর্ট ক্যাম্প সমাপ্ত                    এইচএসসিতে রাঙামাটিতে ফলাফল বিপর্যয়,পাশের হার ৪৯.১১ শতাংশ                    জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে রাঙামাটিতে র‌্যালী, মাছের পোনা অবমুক্তকরণ                    খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্বে তরুন নেতা জুয়েল চাকমা                    সাপছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে দুর্নীতিবিরোধী কুইজ প্রতিযোগিতা                    রাঙামাটিতে সমাজকল্যাণ পরিষদের অনুদানের চেক বিতরণ                    খাগড়াছড়ি জেলায় পাশের হার ৩৬.৬১ শতাংশ                    বান্দরবানের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আবারো নৌকা মার্কায় ভোট দিন-পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী                    কর্ণফুলী নদীতে সেতু নির্মাণে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে সেতু বিভাগের তিন প্রকৌশলীর এলাকা পরিদর্শন                    মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লক্ষ শহীদ স্মরণে আলীকদমে চারা বিতরণ ও বৃক্ষরোপন                    ৩০ লক্ষ শহীদদের স্মরণে জুরাছড়িতে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন                    বরকলে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন                    ৩০ লক্ষ শহীদদের স্মরণে রাঙামাটিতে ৫৬ হাজার বৃক্ষরোপণ                    জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে পানছড়িতে সংবাদ সম্মেলন                    পার্বত্য চুক্তির প্রতি শ্রদ্ধা রেখে সবাইকে কাজ করতে হবে-বৃষকেতু চাকমা                    পলি ও ড্যাম নির্মাণের কারণে কাপ্তাই হ্রদে রুই জাতীয় মাছের উৎপাদন কমছে                    কাপ্তাইয়ে মৎস্য সপ্তাহ উপলক্ষে সংবাদ সন্মেলন                    লামা ও আলীদমে উন্নয়ন কাজ পরিদর্শনে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান                    পানছড়িতে বিভিন্ন প্রজাতির সাত হাজার বৃক্ষরোপন                    কাপ্তাইয়ে ফলদ বৃক্ষ রোপন পক্ষ ও জাতীয় ফল প্রদর্শনী জমে উঠেনি!                    লামায় ৩বসত ঘর গুঁড়িয়ে দিয়েছে বন্য হাতির পাল                    
 

জুরাছড়িতে গ্রামবাসীর চাঁদার টাকা দিয়ে চলছে যে মাধ্যমিক বিদ্যালয়

সুমন্ত চাকমা, জুরাছড়ি : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 04 Jan 2017   Wednesday

 

নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় না থাকায় জুরাছড়ি উপজেলায় দুগর্ম দুমদুম্যা ইউনিয়নের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবনের ইতি টানতে হয়। ২০১০ সালের আগে এ দৃশ্য ছিল ইউনিয়ন জুড়ে। এলাকাবাসীর সহযোগীতায় বগাখালী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় বদলে দিয়েছে দৃশ্য। এবছর প্রথম জেএসসি পরিক্ষায় অংশগ্রহণ করে শত ভাগ পাশ করার গৌরব অর্জন করেছে বিদ্যালয়টি।


বগাখালী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালে দুমদুম্যা বগাখালী এলাকাবাসীর উদ্যোগে বগাখালী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদের সহযোগীতায় ও এলাকাবাসীর চাঁদায় তিন কক্ষ বিশিষ্ট আধা-পাকা ও দু কক্ষ বিশিষ্ট কাচা ভবন নির্মাণ করা হয়। বিদ্যালয়টি পাঠদান অনুমতি ও এমপিওভুক্তি না হওয়ায় শিক্ষার্থীদের কাছ মাসিক ফি এবং এলাকাবাসীর চাঁদার টাকায় দিয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা মেটানো হয়। তবে বিদ্যালয়ের ১শ ৪২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৯০ জনের কাছ থেকে বেতন-ফি নেওয়া হয়। শ্রেণী ভেদে মাসিক বেতন ৫০ থেকে ৭০ টাকা নেওয়া হয়ে থাকে। বাকি শিক্ষার্থীরা বিনা বেতনে পড়ছে।
বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, বগাখালী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় চালু হওয়ার পর বনযোগীছড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের অধীনে জেএসসি পরীক্ষা চালু করা হয়েছে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে বহুবার আবেদন করা হলেও কোন ফলশ্রুতি পাওয়া যাচ্ছে না।


সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন-ভাতা ও বিদ্যালয়ের খরচ মেটাতে এলাকাবসীসহ বিভিন্ন পেশার মানুষদের কাছ থেকে অনুদান নেওয়া হচ্ছে। বগাখালী এলাকায় ৩০ কিলোমিটারের মধ্যে কোন মাধ্যমিক বিদ্যালয় নেই। বর্তমানে ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণিতে ১৪২ শিক্ষার্থী রয়েছে। ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি চলছে। বিদ্যালয়ে চার জন শিক্ষক ও একজন পিয়ন রয়েছেন। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সহযোগীতায় ২ থেকে ৪ মাস পর পর তাঁদের বেতন-ভাতা মেটানো হচ্ছে। তবে প্রায় সময় শিক্ষকদের বেতন ভাতা বকেয়া পড়ে থাকে। এই অবস্থায় বিদ্যালয়টি কত দিন চালু রাখা যাবে তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকরা।


বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শান্তি কুমার তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, বগাখালী ও আশপাশের এলাকার মানুষ জুমিয়া ও অতি দরিদ্র। এখানকার অভিভাবকদের দূরে নিয়ে গিয়ে ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করানো সম্ভব নয়। অথচ দুমদুম্যা ইউনিয়নের বগাখালীতে কেবল একটি উচ্চ বিদ্যালয় রয়েছে। তবে সরকারী-বেসরকারী মিলে ১৪টি মতো প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অভাবে প্রতি বছর শত শত শিক্ষার্থী ঝড়ে যাচ্ছে। ছয় বছর আগে এলাকাবাসীর উদ্যোগে বগাখালী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়। দ্রুত এমপিওভুক্ত না হলে বিদ্যালয়টি বন্ধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।


প্রধান শিক্ষক অমর বিকাশ চাকমা বলেন, এই বিদ্যালয়ে অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী রয়েছে। এখন এই বিদ্যালয়টি ঠিকিয়ে রাখতে হলে সরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন।


মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদুল্লাহ বলেন, বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান উন্নীত করতে সঠিক সিদ্ধান্ত না আসায় এ বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। তবে সিদ্ধান্ত পাওয়া গেলে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


উপজেলা শিক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ভাইস চেয়ারম্যান রিটন চাকমা বলেন, বিদ্যালয়টি দুমদুম্যাবাসীর একটি আশার আলো। বিদ্যালয়ের ধারা বাহিকতা ধরে রাখতে দুর্গমতার বিশেষ বিবেচনায় কর্তৃপক্ষের পাঠদান ও এমপিও ভুক্তির প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া অত্যন্ত জরুরী।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ