• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রাঙামাটিতে বন গবেষণা ইন্সটিটিউটের উদ্ভাবিত প্রযুক্তির পরিচিতি বিষয়ক কর্মশালা                    বিলাইছড়িতে এ্যাডভোকেসী কর্মশালার আয়োজন                    মহালছড়িতে ৬ বছরের শিশু ধর্ষণের অভিযোগে আটক ১                    শিক্ষার কোন বিকল্প নেই -লে: কর্ণেল মেহেদী হাসান                    মানিকছড়িতে ‘সততা’ ফার্মের অসততার বর্জ্যে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী                    খাগড়াছড়িতে ৮৩ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলছে ঝুঁকিপূর্ন ভবনে পাঠদান                    দীঘিনালায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত পানি শোধানাগার কেন্দ্র চালু হয়নি এক দশকেও                    খাগড়াছড়িতে হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট’র তিন দিনের বুুনিয়াদী প্রশিক্ষণ শুরু                    রাঙামাটিতে শটপিচ নাইট ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট শুরু                    বিলাইছড়িতে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা                    প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের লিফলেট বিতরণ                    কাপ্তাই হ্রদে ১মে থেকে তিন মাসের জন্য মাছ শিকার নিষিদ্ধ হচ্ছে                    পাহাড়ে নিরাপদ পানি নিশ্চিত করতে হলে ঝিরি ও ঝর্ণা বাঁচাতে হবে                    অবৈধভাবে পাহাড়ের খাস জমি বিক্রি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে-জেলা প্রশাসক                    পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি গঠিত                    বরকলে হাডুডু খেলাকে কেন্দ্র করে দু’পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষ আহত ৩                    দীঘিনালায় উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে বৈসুক,সাংগ্রাই,বিঝু মেলা                    লামায় ৫৫৩টি গাঁজার গাছ জব্দ, গ্রেপ্তার ১                    বীর শ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুল রউফের শাহাদাৎ বার্ষিকীতে রাঙামাটিতে আলোচনা সভা ও বৃত্তি প্রদান                    রাঙামাটিতে কৃষকলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত                    ভারতের দাদুর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলো বরকলের যুবতি রুপালি চাকমা                    
 

চকরিয়ার মাইট্টাটিল্লা পাড়ায় পাহাড় ধসের ঝুকিতে দেড়শত পরিবার!

এসকে খগেশপ্রতি চন্দ্র খোকন,লামা : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 03 Aug 2015   Monday

চকরিয়া উপজেলার বমু বিলছড়ি ইউনিয়নের মাইট্টাটিল্লা পাড়ায় দেড়শত পরিবার পাহাড় ধসের ঝুকিতে বসবাস করছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে যে কোন মুহূর্তে পাহাড় ধসের গিয়ে প্রাণহানীর অশংকা করছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, লামা পৌরসভার সীমান্ত সংলগ্ন কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বমু বিলছড়ি ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ঘনবসতি পাড়া হল মাইট্টাটিল্লা পাড়া। ৬ বছর পূর্বে বরইতলী থেকে এসে মাইট্টাটিল্লা পাড়ায় বসতি গড়া মোঃ তাহের পিতা আনোয়ার আলী চকরিয়া ও লামার সরকার দলীয় কিছু নেতার(সম্পর্কে আত্মীয়) ক্ষমতা বলে পাড়ার ভেতরে খাড়া পাহাড়টি কেটে জায়গা বড় করে। আবু তাহের জায়গাটি বড় করতে গিয়ে পাহাড়টি খাড়াভাবে প্রায় ৩০ ফুট কেটে স্থিত করে রাখেন। এতে পাহাড়টির উপরে নিচে প্রায় ১শ ৫০ পরিবার পাহাড় ধসের আশংকায় পড়েছে। পাহাড় ধসের ভয়ে আতংকে সময় পাড় করছে মাইট্্রটিল্লা পাড়ার মানুষ।এছাড়াও অবাধে পাহাড় কাটার কারণে বৃষ্টির পানিতে মাটি নেমে এসে পাড়ার একমাত্র রিংওয়েল, পাড়ার রাস্তা, উঠান ঘরবাড়ী ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এতে করে বৃষ্টির পানি স্বাভাবিক প্রবাহিত হতে না পেরে একমাত্র চলাচলের রাস্তাটি ভেঙ্গে গেছে।
মাইট্টাটিল্ল পাড়ার সর্দার মোঃ রাশেদ বলেন, শত বাধা দেয়া সত্ত্বেও গ্রামবাসীর কথা না শুনে বাহুবলে ও বিত্তশালী আত্মীয়ের দাপট দেখিয়ে ভরা বর্ষা মৌসুমে পাহাড় কাটা অব্যাহত রেখেছেন তাহের ও তার পরিবার। বৃষ্টিতে পাহাড় কাটায় পাহাড়ের মাটি নেমে আশপাশের ঘরবাড়ি, ড্রেন, রিংওয়েল, রাস্তাঘাটের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।পাশা পাশি চলতি বর্ষায় পাহাড় ধসে পড়লে পাড়ার অনেক মানুষ মাটি চাপা পড়ার অশংকা রয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের জানালেও তারা কোন ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো জন প্রতিনিধিরা তার পক্ষে সাফায় গেয়ে চলেছে বলে তিনি অভিযেআগ করেন।

এ ব্যাপারে আবু তাহেরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,জায়গা বড় করার জন্য তার জায়গায় পাহাড় কেটেছেন। তাতে কার কি ক্ষতি হল সেটি তার দেখার বিষয় নয়।
এ বিষয়ে বমু বিলছড়ি ইউপির ২নং ওয়ার্ড মেম্বার এম. কফিল উদ্দিন জানান,পাহাড় কাটার বিষয়টি তিনি অবগত রয়েছেন। পাহাড় না কাটতে মোঃ তাহেরকে নিষেধ করা হয়েছে। তিনি উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে সমাধান করার আশ্বাস দেন।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শাহেদুল ইসলাম বলেন, পাহাড় কাটা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে সহকারী ভূমি কমিশনারকে দেয়া হবে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ