• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রাঙামাটিতে কর্মহীনদের খাদ্য সহায়তায় হাত বাড়ালেন যুবলীগ নেতা শফিউল আজম                    খাগড়াছড়ি শহরের বিভিন্ন সড়কে জীবানুনাশক স্প্রে ও মাইকিং করছে সেনা বাহিনী                    সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় হামে আক্রান্ত ২০ শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি                    মহালছড়িতে কর্মহীন অসহায় মানুষের পাশে ছাত্রলীগ                    খাগড়াছড়িতে গরীব ও অসহায়দের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন বাসন্তি চাকমা এমপি                    করোনা প্রতিরোধে জীবাণুমুক্ত ওষধ ছিটিয়েছে চম্পক নগর যুব সমাজ                    রাঙামাটি শহরে ১৫টি স্থানে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন                    রাঙামাটিতে আওয়ামীলীগসহ জেলা প্রশাসন ও পৌরসভার উদ্যোগে হতদরিদ্র মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ                    বাঘাইছড়িতে সামাজিক দুরুত্ব নিশ্চিত করতে হৃদয়ে বাঘাইছড়ির স্বেচ্ছাসেবীদের বৃত্ত অঙ্কন                    মহালছড়িতে বৈদ্যুতিক শটসার্কিটে মসজিদ পুড়ে ছাই                    মাটিরাঙ্গার তাইন্দংবাজারে হঅগ্নিকান্ডে ২৫টি পুড়ে ছাই                    মাটিরাঙ্গার তাইন্দংবাজারে হঅগ্নিকান্ডে ২৫টি পুড়ে ছাই                    করোনার প্রভাবে রাঙামাটিতে বিপাকে সংবাদকর্মীরা                    খাগড়াছড়ির এমপি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা’র মাতৃ বিয়োগ                    কর্মহীন মানুষের বাড়ীতে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের ত্রাণ সামগ্রী                    জীবন সংগঠনের পক্ষ থেকে রাঙামাটিতে চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য বিভিন্ন সুরক্ষা সরঞ্জামাদি হস্থান্তর                    পাহাড়ে হাম উপদ্রুত এলাকায় জরুরী মানবিক সহায়তার আহ্বান                    রাঙামাটি জেলা পরিষদের মাস্ক ও হ্যান্ড গ্ল্যাভস্ বিতরণ                    সামাজিক দুরত্ব রক্ষার্থে ত্রান নিয়ে জনগণের দোরগোড়ায় কাপ্তাই ইউএনও                    করোনা ভাইরাস জনিত জুরাছড়িতে কর্মহীনদের বাড়ীতে খাবার পৌছে দিল ইউএনও ও জনপ্রতিনিধিরা                    সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে শহরের প্রধান সড়কে ঔষুধ মিশ্রিত পানি ছিটানো ও গরীদের শুকনো খাবার বিতরণ                    
 

আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উপলক্ষে রাঙামাটিতে আলোচনা সভায় বক্তারা
পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ন বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে পাহাড়ে নারী অধিকার সম্ভব

স্টাফ রিপোর্টার : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 08 Mar 2020   Sunday

আর্ন্তজাতিক নারী দিবসে বক্তারা বলেছেন, সম্পাদিত পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়িত না হওয়ার কারণে পাহাড়ী নারীরা পার্বত্য চট্টগ্রামের শাসনতান্ত্রিক ব্যবস্থা থেকে বঞ্চিত। পার্বত্য চুক্তির পূর্বে পাহাড়ী নারীরা যে আন্দোলন করতে হয়েছে চুক্তির পরেও তাদেরকে আন্দোলন করতে হচ্ছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ন বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে পাহাড়ে নারী অধিকার সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন। 


রোববার রাঙামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতির ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।


জুম্ম নারীর সমঅধিকার ও সমর্যাদা নিশ্চিত করুন এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নে বৃহত্তর আন্দোলনে সামিল হোন এই শ্লোগানকে সামনে রেখে জেলা শিল্পকলা এডাকেমী মিলনায়তনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের(টিআইবি) সদস্য এ্যাডভোকেট সুস্মিতা চাকমা। পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতির সাংগঠনকি সম্পাদক রীতা চাকমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও সাংসদ উষাতন তালুকদার,বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের পার্বত্যাঞ্চল শাখার সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, এমএন. লারমা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের সভাপতি বিজয় কেতন চাকমা, জেএসএস এর স্টাফ সদস্য আশিকা চাকমা, জেলা যুব সমিতির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক নান্টু ত্রিপুরা, জেলা পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জগদীশ চাকমা। সভা সঞ্চালনা করেন রিনা চাকমা।


সভায় বক্তারা আরো বলেন, সারা বিশ্বে নারীদের উপর সহিংসতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশের নারী সমাজও বঞ্চিত হচ্ছে। নারীদের অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক ভাবে অবহেলা করা হচ্ছে। ধর্মীয় দোহায় দিয়ে নারী সমাজকে পিছনে রাখা হচ্ছে। অথচ নারী ছাড়া এই বিশ্বে কোন অগ্রগতি সম্ভব না।


বক্তারা বলেন, পার্বত্য এলাকার পাহাড়ী নারীদের উপর সহিংসতা মাত্রা সবচেয়ে বেশি। এখানে বহিরাগত সেটেলার দ্ধারা আদিবাসী নারী ধর্ষণ, হত্যা, হয়রানি, যৌন নির্যাতন আশংকা জনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষের জন্য ফাউডেশনের ২০১৯ সালের এক গবেষণায় উঠে এসেছে যে, পার্বত্য চট্টগ্রামে ৪৫ শতাংশেরও বেশি নারী কর্মক্ষেত্রে বা প্রতিষ্ঠানিক স্তরে বহু ধরনের সহিংসতার শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে ৬১ শতাংশ জানিয়েছেন যে তারা বাজার এলাকায়, ৪৫ শতাংশ মাঠে, ৬ শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, ৩ শতাংশ কর্মস্থলে সহিংসতার সম্মুখীন হয়েছেন। আবার, ৩৩ শতাংশ নারী শরীরিক নির্যাতন, ৩৮ শতাংশ মানসিক নির্যাতন, ১৯ শতাংশ অর্থনৈতিক নিপীড়ন এবং ৫ শতাংশ যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। অপরদিকে কাপেং ফাউডেশনের তথ্য মতে জানা যায়- ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট ২৬টি আদিবাসী নারীর উপর সহিংস ঘটনা ঘটেছে। তার মধ্যে ১৪টি সমতল অঞ্চলে এবং বাকী ১২টি পার্বত্য অঞ্চলে। যৌন বা শারীরিক নির্যাতনমূলক ৩৩টি ঘটনার মধ্যে ১২টি পাহাড়ে এবং ২১টি সমতল অঞ্চলে। এসব ঘটনায় কমপক্ষে ৭ জন নারীকে ধর্ষণ এবং ৫ জন  নারী ও কিশোরীকে হত্যা বা ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। আর ৭ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। অন্যান্যের মধ্যে ৩ জনকে গণধর্ষণ ও ৬ জনকে শারীরিক নির্যাতন এবং ২ জনকে যৌন নির্যাতন করা হয়েছে। আর ২০১৮ সালে প্রায় ৫৩ জন আদিবাসী নারী ও শিশু বিভিন্ন ধরনের সহিংসতার শিকার হয়েছে। তন্মধ্যে সমতলে ২২ জন আর ৩১ জন পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে। তাদের কোন সুবিচার মেলেনি।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঊষাতন তালুকদার বলেন, পার্বত্য এলাকার মানুষ শান্তি প্রিয় এবং সহজ সরল। এখানে রাজনৈতিক ভাবে সরকার আদিবাসীদের দমন- পীড়ন করছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। উল্টো চুক্তি বিরোধী কাজ করা হচ্ছে। অবহেলার মাত্রা চরম পর্যায়ে পৌছে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে যে কোন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। তার জন্য সরকার দায়ী থাকবে বলে তিনি সর্তক করেন। তিনি সবা্ইকে শান্তি প্রতিষ্ঠারও আহ্বান জানান।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে সুস্মিতা চাকমা বলেন, সারাবিশ্বে বর্তমানে ৭৪ কোটি নারী অপ্রাতিষ্ঠানিক অর্থনৈতিক জীবনধারায় বসবাস করতে বাধ্য হচ্ছে, যাদের সামাজিক নিরাপত্তা, সরকারি সেবা ও অবকাঠামোর সুবিধা লাভে কোন সুযোগ নেই বললেই চলে। নারীরা পুরুষের তুলনায় ২.৬ গুণ বেশি অবৈতনিক ও গৃহস্থালি কাজ করে থাকে। বিশ্বে মাত্র ৪১ শতাংশ প্রসূতি তাদের নবজাতসহ মাতৃকালীন সুবিধা পেয়ে থাকে। বাকি ৫৯ শতাংশ প্রসূতি নারী মাতৃকালীন সুবিধা থেকে সম্পূর্ণ বঞ্চিত। তিনজন নারীর মধ্যে অন্তত একজন নারী তাদের জীবনে সহিংসতার শিকার হয়ে থাকে।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ