• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রাঙামাটিতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত                    রাঙামাটি জেলা পরিষদ জেলাবাসীর আর্থসামাজিক উন্নয়নে কাজ করছে-বৃষকেতু চাকমা                    খাগড়াছড়িতে শেখ রাসেলের ৫৩তম জন্ম দিন পালিত                    পানছড়ি জনকল্যাণ বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবরদান অনুষ্ঠিত                    পাকুজ্জ্যাছড়ি ও সাপমারা প্রাথমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন                    পাহাড়ে এখন শান্তির সুবাতাস বাইছে- রাঙামাটি রিজিয়ন কমন্ডার                    কাপ্তাইয়ে একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্পের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত                    সামাজিক ক্ষেত্রে অবদান রাখায় সাত গুনী ব্যক্তিকে সন্মাননা দিয়েছে মোনঘর                    রাঙামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সাথে বিসিএস প্রশিক্ষণার্থীদের সাক্ষাত                    বরকলে গাঁজাসহ শ্বশুড় ও পুত্রবধু আটক                    গ্রীনহীলের কৃষি ও প্রাণী সম্পদ বিষয়ে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কর্মশালা                    জুরাছড়ির আমতলী ধম্মোদয় বন বিহারে কঠিন চীবর দান অনুষ্ঠিত                    পানছড়িতে জনসংঘ বৌদ্ধ বিহারে কঠিন চীবরদান অনুষ্ঠিত                    চন্দ্রঘোনা খ্রীষ্টিয়ান হাসপাতালে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্ধোধন                    শিশুদের সৃজনশীল বিকাশে রাঙামাটিতে দুদিনের চিত্র প্রদর্শনী সমাপ্ত                    রাঙামাটি জেলা ক্রীড়া সংস্থার ক্রিকেট উপকমিটির ১৮ সদস্যর পদত্যাগ                    রাঙামাটিতে শ্রমিকদলের বিক্ষোভ-মিছিল পুলিশি বাধায় পন্ড                    রাঙামাটি জেলা পরিষদের সাথে ইউএনডিপি’র বিশেষজ্ঞ দলের সৌজন্য সাক্ষাত                    খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ভূয়া সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে রাঙামাটিতে ছাত্রদলের বিক্ষোভ                    কর্ণফুলি ডিগ্রি কলেজের নব নির্বাচিত কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিল                    কাপ্তাইয়ে শিশু কিশোরদের জাতীয় মৌসুমী প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত                    
 

থানচি এলাকাবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন
প্রধানমন্ত্রীর থানচি বিদ্যুৎ প্রকল্প উদ্বোধন: বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত দুর্গম থানচি

বিশেষ প্রতিনিধি,বান্দরবান : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 01 Mar 2017   Wednesday

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার বান্দরবানের দুর্গম থানচি উপজেলার  বিদ্যুৎ প্রকল্প উদ্বোধন করেছেন। দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী এই  বিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্বোধন করেন। 

 

এদিকে,প্রধানমন্ত্রীর আনুষ্ঠানিকভাবে  বিদ্যুৎ প্রকল্প উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে দুর্গম এলাকা থানচি আলোকিত হয়ে উঠেছে। বিদ্যুতের সফল ভোগ করছেন থানচির এলাকাবাসী। দুর্গম এলাকার মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা  ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

 

উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী পার্বত্য চট্টগ্রামের অধিবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, দীর্ঘদিন এখানে একটি অশান্ত পরিবেশ ছিল।  আমি প্রথমবার সরকারে আসার পর পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি করি এবং এরপর সেখানে সত্যিই শান্তি ফিরে আসে এবং সার্বিক উন্নয়নের ব্যাপক কর্মসূচি আমরা বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। যেটা সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ছিল সেই রাস্তাঘাট, পুল ব্রিজ- আমরা করে দিচ্ছি। পাশাপাশি এখানে কোন মোবাইল নেটওয়ার্ক ছিল না, আওয়ামী লীগ সরকার আসার পর সেখানে যেন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারে সেই নেটওয়ার্ক আমরা করে দিয়েছি।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে বিদ্যুতের ব্যবস্থা করে দিলাম। পাশাপাশি গোটা পার্বত্য চট্টগ্রামের উন্নয়নের জন্য ইতোমধ্যে ৬শ’ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সমগ্র এলাকায় বিদ্যুতায়নের ব্যবস্থা করা হবে। যেসব জায়গায় গ্রীড লাইন যাওয়া কষ্টকর সেখানে সোলার প্যানেল দিচ্ছি। এখানে ৪৬ হাজার সোলার হোম করা হবে।


শেখ হাসিনা বলেন, ঐ এলাকার মানুষ যেন আর দরিদ্র না থাকে, সেজন্য সকল ধরনের উদ্যোগ তাঁর সরকার বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে।


তিনি বলেন, থানছিসহ বিভিন্ন এলাকার স্কুলগুলোকে আবাসিক স্কুল করে দেয়ারও আমরা উদ্যোগ নিয়েছি। শেখ হাসিনা বলেন, ‘তার লক্ষ্য দেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ করে গড়ে তোলা।’  

 

গণভবনে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানের সময় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদসহ মন্ত্রী পরিষদ সদস্যবৃন্দ, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টাবৃন্দ, সংসদ সদস্যবৃন্দ এবং উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তাগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।

 

অপরদিকে বান্দরবানে জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সে বিদ্যুত প্রকল্প উদ্বোধনীর সময় উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা, জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জীব কুমার রায়, জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।  

 

উল্লেখ্য,প্রধানমন্ত্রী  গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে নতুন ট্রান্সমিশন ও বিতরণ লাইনের পাশাপাশি আটটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র উদ্ধোধন করেন।  সেগুলো হল ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও সাভার উপজেলা, মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিপাড়া উপজেলা, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা, টাঙ্গাইলের ভুয়াপুর উপজেলা, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা, ফেনীর দাগনভূইয়া উপজেলা, কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচড় উপজেলা, মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলা এবং নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা, পার্বত্য এলাকায় বান্দরবনের থানচি উপজেলা।

 

এদিকে, ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে দুর্গম এলাকা থানচি আলোকিত হয়ে উঠেছে। বিদ্যুতের সফল ভোগ করছেন ক্ষুদ্র-মাঝারি ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ সাধারণ মানুষ। বিদ্যুতের আলোতে আলোকিত হওয়ায় দুর্গম এলাকার মানুষেরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

 

জানা গেছে, এক সময় দুর্গমের খ্যাতি ছিল থানচি উপজেলার। জেলা শহর থেকে নৌকায় করে থানচি পৌছাতে সময় লাগতো কম করে হলেও তিনদিন। এখন সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতর হওয়ায় সময় লাগছে তিনঘন্টা। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে থানচি উপজেলার সাঙ্গু নদীতে একটি ব্রিজ নির্মিত হয়েছে। এই ব্রিজ নির্মাণের ফলে এলাকার মানুষের জনজীবনে এসেছে গতি। সড়ক, ব্রিজের পরে দুর্গম থানচিতে বিদ্যুত পৌছায় এলাকার মানুষের মধ্যে আরো গতি সঞ্চার বেড়েছে। এলাকার মানুষের জীবন মান আরো উন্নতর হবে এমন প্রত্যাশা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের।

 

পিডিবি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালের এপ্রিলে থানচিতে বিদ্যুৎ সরবরাহের কাজ শুরু হয়। আর শেষ হয় গত বছরের জুনে। একই বছরের আগস্টের দিকে বিদ্যুৎ সংযোগ পায় থানচির মানুষ। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রায় ১২ হাজার মানুষ বিদ্যুত সুবিধার আওতায় আসবে। ক্রমান্বয়ে সব মানুষকে বিদ্যুত সুবিধার আওতায় আনা হবে। প্রায় ২১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩৫ কিলোমিটার ৩৩ কেভি সঞ্চালন লাইন, ১১ কেভির ২৮ কিলোমিটার সরবরাহ লাইন ও ১৭ কিলোমিটার বিতরণ লাইন স্থাপন করা হয়েছে। ১৭টি ট্রান্সফরমার বসানো হয়েছে।

 

৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বলীপাড়া বিজিবি’র উপকে›ন্দ্র (সাব ষ্টেশন) থেকে ৫ হাজার পরিবারকে আবাসিক সংযোগ দেওয়া সম্ভব হবে। জেলা শহর থেকে ওয়াই জংশনের দূরত্ব ১২ কিলোমিটার। ওয়াই জংশনের সাব ষ্টেশন থেকে একটি বিদ্যুতের লাইন গেছে রুমা উপজেলায়। আর একটি চিম্বুক পর্যন্ত। নতুন প্রকল্পের আওতায় চিম্বুক থেকে বলীপাড়া পর্যন্ত নতুন সাব ষ্টেশন করা হয়েছে।

 

পিডিবির নির্বাহী প্রকৌশলী (বান্দরবান) মো: মিজানুর রহমান ভুঁইয়া বলেন, অগ্রসর এলাকার মত বিদ্যুত পাবেন থানচির মানুষ। বিদ্যুৎ ব্যবস্থার ফলে জীবনমান পাল্টে যাবে এখানকার মানুষের। কৃষি, পর্যটন শিল্পের দ্রুত বিকাশ ঘটবে বিদ্যুত সরবরাহের কারণে। কৃষকদের উৎপাদিত ফসল আর নষ্ট হবে না।

 

থানচি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মার্মা বলেন, চারটি থানা নিয়ে গঠিত থানচি উপজেলায় প্রায় ৪০ হাজার মানুষের বসবাস। স্বাধীনতার ৪৫ বছর পরও এখানকার মানুষ ছিল অন্ধকারে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কিছু সংখ্যক মানুষ সৌর বিদ্যুত ব্যবহার করলেও বৃহত্তর জনগোষ্ঠী ছিল বিদ্যুত সুবিধার বাইরে। এখন বিদ্যুত সুবিধা পাওয়ায় এলাকার মানুষের ভাগ্যের চাকা পরিবর্তন ঘটবে।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ