• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
মাটিরাঙ্গায় পাহাড়ি ঢলে সেতু ধ্বস,১৫ গ্রামের মানুষের জীবনে অচলাবস্থা                    রামগড়ে তথ্য অফিসের প্রেস ব্রিফিং                    রামগড়ে স্বাস্থ্য বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত                    রামগড়ে অভিযানে ভারতীয় মদ ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে বিজিবি                    মহালছড়িতে ৩ গ্রামবাসীকে অপহরণের নিন্দা ও প্রতিবাদ ইউপিডিএফের                    রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা                    জুরাছড়িতে জেলা পরিষদের নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ                    রাঙামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বাঘাইছড়িতে বন্যা কবলিত স্থান পরিদর্শন                    ঈদের ছুটিতে খাগড়াছড়ির বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের ভীড়                    বাঘাইছড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস`র এক সদস্য নিহত                    রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কে সাময়িকভাবে ভারী যানবাহন বন্ধ                    বান্দরবানের লামায় এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার                    রাঙামাটিতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য্যরে মধ্যে দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত                    পানছড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস’র এক কর্মী নিহত                    খাগড়াছড়িতে মাসব্যাপী আম মেলা শুরু হয়েছে                    ঢাবি’র মেধাবী ছাত্র সুমন চাকমার জীবন বাঁচাতে সহায়তার কামনা                    জেলা পরিষদের বিলাইছড়িতে দুঃস্থদের মাঝে ঈদ বস্ত্র বিতরণ                    জেলা পরিষদের বরকলে বন্যা দুর্গতদের নগদ অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ                    লংগদুতে দুুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস’র ১ কর্মী নিহত,আহত ১                    বাঘাইছড়িতে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত,পানিতে ডুবে ১জনের মৃত্যু                    মগবানের টর্নেডোতে ৩টি বাড়ী বিধস্ত,গাছগাছালির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি                    
 

বান্দরবানে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট

বান্দরবান প্রতিনিধি : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 04 May 2015   Monday

বান্দরবানে গ্রীস্মের শুরুতে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।  দুর্গম এলাকার ঝিরি-ঝর্ণায় পানির উৎস নষ্ট হওয়ার কারনে প্রত্যান্ত এলাকাসহ পৌর এলাকায় পানি সংকট দেখা দেয়ায়  স্থানীয় লোকজন ঝিরি-ঝর্ণা,পুকুর,নদী-ছড়ার দুষিত পানি ব্যবহার করছেন।  এতে ডায়রিয়াসহ নানা পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

 

জানাগেছে, প্রতিবছর গ্রীস্মের শুরুতেই  বান্দরবানের আদিবাসী পাড়াগুলোতে তীব্র খাবার পানির সংকট দেখা যায়। এ বছরও গ্রীস্মের শুরুতে এ সংকট শুরু হয়েছে। এছাড়াজেলার দুর্গম এলাকার ঝিরি-ঝর্ণায় পানির উৎস নষ্ট হওয়ার কারনে প্রত্যান্ত এলাকাসহ পৌর এলাকায় পানি সংকট আরও তীব্র আকারে দেখা দিয়েছে। ফলে ঝিরি-ঝর্ণা,পুকুর,নদী-ছড়ার দুষিত পানি ব্যবহার করছেন স্থানীয়রা। এতে ডায়রিয়াসহ নানা পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন শত শত লোক।

 

সূত্র মতে, প্রতিনিয়ত নির্বিচারে বৃক্ষনিধন,অবাধে পাথর উত্তোলন,ও নানা ধরনের বনজ সম্পদ আহরনের ফলে পানির উৎস খ্যাত বিভিন্ন ঝিরি ও পাহাড়ী ঝর্ণার পানি শুকিয়ে গেছে। স্থানীয়রা ঘন্টার পার ঘন্টা পায়ে হেটে কয়েক মাইল পথ পাড়ি দিয়ে ঝিরি-ঝর্ণা থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করতে হচ্ছে। পানির চাহিদা মেটাতে জেলা পরিষদ,জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী বিভাগ ও বিভিন্ন এনজিও সংস্থা বিগত কয়েক বছরে কয়েক হাজার রিংওয়েল-নলকুপ খনন করে। অভিযোগ রয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো রিংওয়েল-নলকুপ খননে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির আশ্রয় নেওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে পানি উঠে না। অধিকাংশ কল অকেজো অবস্থায় পড়ে রয়েছে।

 

এদিকে রুমা,বগালেক,নীলগিরির পাশে এম্পু পাড়া,বলিবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দেখা যায়,জেএফএস এর প্লাস্টিকের পাইপ গুলো ভেঙ্গে পানির হাউজ গুলো অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে। আর  পৌর এলাকায় একদিন পর পর ঘন্টা খানেকের জন্য পানি সরবরাহ করা হলেও বহুতল ভবনে মোটর ব্যাবহার করে পানি সংগ্রহ করার কারণে গরিব দুঃখি মানুষ গুলো বিশুদ্ধ পানি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

 

টংকাবতী চেয়ারম্যান পাড়ার বাসিন্দা রিংয়ং মুরুং জানান, পাড়ার ঝিরি দিয়ে পাথর ভর্তি ট্রাক চলাচল করায় ঝিরির পানিও ঘোলা হয়ে যাচ্ছে। পাড়ায় পানির খুব অভাব আর অভাবের কারণে পাড়ার লোকজন বাধ্য হয়ে ঝিরির ঘোলা পানি ব্যবহার করছে। খাবার পানি পেতে হলে অনেক দুর পাহাড়ী পথ পায়ে হেটে যেতে হয়।

 

নীলগিরির পাশে এম্পু পাড়ার বাসিন্দা নেললে মুরুং জানান, বিগত ১০/১৫ বছর আগে তাদের পাড়ার পাশে ঝিরি থেকে সারা বছর খাবার পানি পাওয়া যেত। কিন্তু বর্তমানে  গ্রীস্ম আসার আগেই  ঝিরির পানি শুকিয়ে গেছে। এখন তাদের পাড়ার অনেক নিচে গিয়ে আবার আরেকটি পাহাড় পাড়ী দিয়ে অন্য ঝিরি থেকে পানি সংগ্রহন করতে হচ্ছে।

 

রুমা উপজেলার একাধিক পাড়া কারবারীরা জানিয়েছেন,পার্বত্য জেলা পরিষদ,জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ ও এনজিও সংস্থাগুলোর উদ্যোগে নির্মিত রিংওয়েল,গভির নলকুপ,পাতকুয়া এবং প্রাকৃতিক উৎস থেকেও বর্তমানে পানি পাওয়া যাচ্ছে না।

 

বাঘমারা এলাকার থোয়াইনু অং মার্মা জানান,আগে বিভিন্ন ঝিরি-ঝর্ণা থেকে প্রচুর পরিমান পানি পাওয়া যেত। কিন্তু বর্তমানে অবাধে গাছ পালা নিধন ও পাথর আহরণের ফলে আগের মতো ঝিরি-ঝর্ণাগুলোতে পানি পাওয়া যাচ্ছে না।

 

শহরের উজানী পাড়ার  ম্যা হ্লা চিং মার্মা জানান, দুই তিন দিন পরপর আমরা যা পানি পাচ্ছি তা আমাদের চাহিদার তুলনায় অনেক কম। ফলে পানির চাহিদা মেটাতে হোটেল রে¯েঁÍারাসহ সবাই পুকুরের দুষিত পানি খাবার সহ বিভিন্ন কাজে ব্যাবহার করছে।

 

পরিবেশবাদীদের মতে, প্রাকৃতিক বন ও বনাঞ্চলে গাছ পালা না থাকায় জেলায় পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। পার্বত্য এলাকায় প্রকৃতিক বন,পাথর ও বৃক্ষের শিঁকড় থেকে ঝিরি-ঝর্ণা ও নদীর পানির মূল উৎস। পাহাড়ী ছড়া,ঝিরি-ঝর্ণা ও নদীর পাশে যে সমস্ত বাঁশ,লতা-পাতা,ফার্ণ ও বৃক্ষগুলো  রয়েছে সেগুলোই হচ্ছে পানির উৎস সৃষ্টির সহায়ক উদ্ভিদ। বর্তমানে পাহাড়ে ঝিরি-ছড়া ও পাহাড়ী ঝর্ণার পাশে কোন ধরনের গাছ পালা থাকায় এলাকায় পানির অভাব দেখা দিয়েছে।

 

এ ব্যাপারে বান্দরবান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ সোহরাব হোসেন জানান,বান্দরবান জেলায় নির্বিচারে বৃক্ষনিধন,অবাধে পাথর উত্তোলন ও অপরিকল্পিত জুম চাষের ফলে জেলায় পানির স্তর অনেক নিচে নেমে গেছে। তাই গ্রীস্মের শুরুতেই পানির অভাব দেখা দেয়।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

আর্কাইভ