জলবায়ু অর্থায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতের দাবিতে রাঙামাটিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত

Published: 28 Nov 2019   Thursday   

স্পেনের মাদ্রিদে আসন্ন কপ-২৫ সম্মেলনে প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নে প্রতিশ্রুত  জলবায়ু অর্থায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতের দাবিতে রাঙামাটিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

 

জেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্বরের সামনে আয়োজিত ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্যে দেন সনাক সভাপতি অমলেন্দু হাওলাদার, সনাক সদস্য মুজিবুল হক বুলবুল ইয়েস সদস্য আবু জাফর আব্দুল্লাহ রিমন, এলাক ফ্যাসিলিটেটর মো: নুরুল আলাল , স্বজন সদস্য রেজাউর রশীদ পাপ্পু প্রমুখ। ইয়েস সদস্য অন্তর সেন শুভ এর সঞ্চালনায় এ সংক্রান্ত ধারণাপত্র পাঠ করেন ইয়েস সদস্য সাদিয়া সেলিম বন্যা ও পম্পি বড়–য়া। মানবন্ধনে সনাক, স্বজন, ইয়েস, ইয়েস ফ্রেন্ডস সদস্যবৃন্দ, টিআইবি কর্মকর্তাবৃন্দ ও  বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোক অংশ গ্রহণ করেন।

 

সনাক সদস্য মুজিবুল হক বুলবুল বলেন, “চলমান জাতিসংঘের জলবায়ু বিষয়ক জরুরি সম্মেলনে জলবায়ু স্বচ্ছতা কাঠামোসহ প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নে চূড়ান্ত রূপরেখা গৃহীত হবে বলে আমাদের প্রত্যাশা যা বৈশি^ক চাহিদা অনুযায়ী প্যারিস চুক্তিতে প্রতিশ্রুত জলবায়ু তহবিল প্রদান, জলবায়ু তহবিল ব্যবস্থাপনায় ন্যায্যতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিতে সহায়ক হবে। এছাড়া এই স্বচ্ছতা কাঠামো দূষণকারী কর্তৃক ক্ষতিপূরণ প্রদান নীতি বিবেচনা করে ঋণের পরিবর্তে উন্নয়ন সহায়তার ‘অতিরিক্ত’ এবং ‘নতুন’ প্রতিশ্রুতি হিসেবে শুধু সরকারি অনুদান হিসেবে অর্থায়ন নিশ্চিতের পথ সুগম করবে। পাশাপাশি, চরম ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশসহ স্বল্পোন্নত দেশগুলো জিসিএফ থেকে প্রয়োজনীয় তহবিল পাবার ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠায় জলবায়ু অর্থায়ন ছাড়ে বাংলাদেশকে ক্ষতিগ্রস্ত অন্যান্য দেশগুলোর সাথে সম্মিলিতভাবে কাজ করায় বিশেষ গুরুত্বারোপ করতে হবে।”

 

সনাক সভাপতি অমলেন্দু হাওলাদার আসন্ন কপ-২৫ সম্মেলনে বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল ও অনুন্নত দেশসমূহে বিশেষ করে বিশ^ব্যাপী ঝঁুিকতে থাকা ক্ষতিগ্রস্ত দেশসমূহের কোটি কোটি মানুষের স্বার্থে সনাক রাঙ্গামাটি টেকসই উন্নয়নে জলবায়ু অর্থায়নে দৃশ্যমান অগ্রগতি, ন্যায্যতা ও স্বচ্ছতা কাঠামো সম্বলিত রুপরেখা অনুযায়ি প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়ন ও ক্ষয় ক্ষতি মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান।  

 

উল্লেখ্য, জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক জাতিসংঘ ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন ক্লাইমেট চেঞ্জ (ইউএনএফসিসি) এর আওতায় ২০১৫ সালে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্যারিস চুক্তি সম্পাদন করে, যা ২০২০ সাল হতে কার্যকর হওয়ার কথা। উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে কোপেনহেগেন চুক্তির আওতায় জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্ত উন্নয়নশীল দেশসমূহের ক্ষতিপূরণ বাবদ উন্নত দেশসমূহ "দূষণকারী কর্তৃক পরিশোধযোগ্য” নীতি অনুসরণে উন্নয়ন সহায়তার ‘অতিরিক্ত’ এবং ‘নতুন’ হিসেবে ২০২০ সাল হতেপ্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন ডলার প্রদানের যে প্রতিশ্রুতি প্রদান করেছিল প্যারিস চুক্তির আওতায় ২০২৫ সাল পর্যন্ত তা অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করা হয়েছে। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ১৩ এর আওতায় জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় প্রতিশ্রুত তহবিল প্রদানের বিষয়ে শিল্পোন্নত দেশসমূহ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এর পাশাপাশি ২০১৩ সালে ইউএনএফসিসি’র কনফারেন্স অব পার্টিস (কপ) এর ১৯তম সম্মেলন (কপ১৯) এ জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবের ঝুঁকিতে থাকা উন্নয়নশীল দেশসমূহের ‘ক্ষয়-ক্ষতি’  মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় অর্থায়নের জন্য কর্মপরিকল্পনা তৈরির সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় (সিদ্ধান্ত ২/সিপি.১৯)। পরবর্তীতে কপ২২ সম্মেলনে ক্যানকুন অভিযোজন ফ্রেমওয়ার্কের অধীনে অনুচ্ছেদ ১৫ অনুসারে, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সৃষ্ট ‘আবহাওয়ার আকস্মিক/চরম ঘটনা(এক্রট্রিম ইভেন্ট)’ ও ‘ধীরগতির মাধ্যমে সংঘটিত ঘটনাসমূহ (স্লো অনসেট ইভেন্ট)’ এর ফলে ‘ক্ষয়-ক্ষতি’ চিহ্নিত করতে “ওয়ারসো ইন্টারন্যাশনাল মেকানিজম” প্রণীত হয় এবং প্যারিস চুক্তিতে তা যুক্ত করা হয়। সর্বশেষ কপ-২৪ সম্মেলনে জলবায়ু অর্থায়নে বাস্তব অগ্রগতি ও ন্যায্যতা নিশ্চিতে স্বচ্ছতা কাঠামো সম্বলিত প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের রূপরেখাও (রুল বুক) চূড়ান্ত করা হয়েছে। স্পেনের মাদ্রিদে আসন্ন কপ-২৫ সম্মেলনে প্রতিশ্রুত জলবায়ু অর্থায়নের পাশাপাশি ‘ক্ষয়-ক্ষতি’ মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়।

 --হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত