বান্দরবানে পানিতে ডুবে নিখোঁজ নৌ-বাহিনীর সাব-লেফটেন্যান্ট ও কলেজ ছাত্রী

Published: 30 Jun 2019   Sunday   

বান্দরবানে ভ্রমণে এসে রোয়াংছড়ি পাইন্দু খালে নৌ-বাহিনীর এক সাব-লেফটেন্যান্ট ও ঢাকার এক কলেজ ছাত্রী নিখোঁজ রয়েছে। গেল শনিবার দুপুরে ছয়জনের একটি গ্রুপ রোয়াংছড়ি উপজেলা হয়ে রুমা উপজেলার তিনাপ সাইতার নামে একটি ঝর্ণা দেখতে যায়। সন্ধ্যার দিকে পাইন্দু খাল বেয়ে রোয়াংছড়িতে ফিরে আসার পথে পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে নিখোঁজ রয়েছে দুই পর্যটক।

 

রোববার বিকেল পর্যন্ত সেনাবাহিনী, পুলিশ ও স্থানীয়রা উদ্ধার অভিযানে নেমে তাদেরকে উদ্ধার করতে পারেনি। দুর্গম পাহাড়ি পথ ও পাহাড়ি ঢলের পানির কারণে নিখোঁজদের উদ্ধারে বেগ পেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

রোয়াংছড়ি থানা ওসি শরিফুল ইসলাম জানান, নৌ-বাহিনীর সাব-লেফটেন্যান্ট সাইফুল্লাহ ও ঢাকা গ্রীণ আর্ট কলেজের এক ছাত্রী জান্নাত পাইন্দু খালে পড়ে নিখোঁজ রয়েছে। গত শনিবার রোয়াংছড়ি উপজেলা হয়ে রুমা উপজেলায় অবস্থিত তিনাপ-সাইতার নামক একটি ঝরণা দেখতে যায় ছয়জনের একটি গ্রুপ। সন্ধ্যার দিকে ঝরণা থেকে ফিরে আসার পথে পাইন্দু খাল পার হতে গিয়ে পা পিছলে পড়ে যায় নিখোঁজ দুইজন। পা পিছলে পড়ে গিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানিতে ডুবে তাঁরা এখনো নিখোঁজ রয়েছে। বাকী চারজন নিখোঁজ দুই সঙ্গীকে উদ্ধার করতে তারা পাইন্দু খালের পাশে রোনিন বম পাড়ায় আশ্রয় নিয়েছে। নিখোঁজদেরকে উদ্ধারে পুলিশ ও স্থানীয়রা কাজ করছে। দুর্গম ও পাহাড়ি ঢলের পানিতে নিখোঁজদের উদ্ধর করতে বেগ পেতে হচ্ছে। 

 

রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও রোনিন পাড়া বাসিন্দা লাল রোসাং বম জানান, তিনাপ-সাইতার ঝরণাটি পর্যটকদের কাছে খুব জনপ্রিয়। পাইন্দু খালটি মূলত রোয়াংছড়ি ও রুমা উপজেলার সীমানায়। এক সময় তিনাপ-সাইতার ঝরনা দেখতে রুমা এলাকা হয়ে যেত হত। প্রশাসন বন্ধ করে দেওয়ায় বিনা অনুমতিতে এখন রোয়াংছড়ি হয়ে চলে যায় পর্যটকরা। ঝরণাটি উপজেলা সদর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে। দুর্গম পাহাড়ি পথ ও খাল বেয়ে ঝরণাটিতে যেতে হয়। স্থানীয় ছাড়া বাইরের অনেকের পক্ষে ঝরণাটিতে যাওয়া খুব কষ্টসাধ্য ব্যাপার বলে তিনি জানান।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত