আলীকদমে ভাইরাল হওয়া সেই ছবির ভিকটিম রুমপাও ম্রো’র সংবাদ সম্মেলন

Published: 25 Mar 2019   Monday   

 

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম এক আদিবাসী যুবতীকে জড়িয়ে ধরা অবস্থায় একটি ছবি সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার তিন দিন পর সেই ম্রো যুবতী রুম পাও ম্রো এর সংবাদ সম্মেলন করেছেন। 

 

সোমবার বিকাল তিনটার সময় আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালামের বাসভনের দ্বিতীয় তলায় রুমপাও ম্রো এ সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় তার বড় ভাই মেনরুং ম্রো উপস্থিত ছিলেন।

 

সংবাদ সম্মেলনে রুম পাও  ম্রো বলেন, আলীকদম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম তাকে জড়িয়ে ধরা অবস্থায় যে ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ অনলাইন, পত্রিকা ও টিভিতে যেভাবে প্রচার হয়েছে তার কারণে তার সামাজিকভাবে মানহানী হয়েছে।

 

তিনি আরো বলেন, দ্বিতীয় ধাপে আলীকদম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালামের সর্মথনে তিনি ও তার পরিবার কাজ করেছি। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আবুল কালাম নির্বাচিত হওয়ার পর গেল  ২৩ মার্চ দুপুরে উপজেলার কুরুকপাতা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের উদ্দ্যোগে নয়াপাড়ায় নির্বাচিত চেয়ারম্যান আবুল কালামকে সংবর্ধনা দেওয়ার আয়োজন করা হয়। সেখানে চেয়ারম্যার আবুল কালাম অনুষ্ঠানস্থলে আসলে ওয়ার্ডে সকল নারী পুরুষ একএক করে ফুল দিয়ে জড়িয়ে ধরে সংবর্ধিত করেন।    তিনিও অন্যান্যেদের মতো ফুলের মালা  দিয়ে চেয়ারম্যান আবুল কালামকে সংবর্ধীত করতে গেলে  তিনি আবেগ প্রবন হয়ে খুশিতে কান্না করেন। এ সময়  তিনি মাথা ঘুরে পড়ে যাচ্ছেন এমন সময় আবুল কালাম  আমাকে জড়িয়ে ধরে ফেলেন। চেয়ারম্যান আমাকে জড়িয়ে না ধরলে  তিনি মাটিতে পড়ে গিয়ে গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হতেন। সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ পত্রিকা, টিভি ও অনলাইনে  ঐ মূহুর্ত অবস্থার ছবিটি যে ভাবে প্রচার হয়েছে তার কারণে তার সামাজিক ভাবে তার মান সম্মান ক্ষুন্ন হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন।

 

এদিকে  আরীকদম উপজেলার কুরুক পাতা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ক্রাত পুং ম্রো প্রথম বলেন, তার  ইউনিয়নের নয়াপাড়ায় এলাকায়  আলীকদম উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত  চেয়ারম্যান আবুল কালাম সংবর্ধীত করা সময় রুমপাও ম্রো ফুলের মালা দিতে গিয়ে মাথা ঘুরে পড়ে যাওয়ার সময় চেয়ারম্যান জড়িয়ে ধরে । এ অবস্থার একটি ছবিটি গেল তিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। এ কারণে ম্রো সম্প্রদায়ের মানসম্মান হানী হয়েছে।

 

আলীকদম উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম  বলেন, উপজেলা নির্বাচনে আমি বিজয়ী হওয়ার পর থেকে পরাজিত প্রার্থী জামাল উদ্দিন ও আলীকদম থানার ওসি মোঃ রফিক উল্লাহ মিলে তাকে বিপদে ফেলার জন্য ভাইরাল হওয়া ছবিটি বিভিন্ন মাধ্যমে অর্থ দিয়ে প্রাচার করেছেন। নয়াপাড়া এলাকার গ্রামবাসীর উদ্যাগে তাকে সংবর্দনা দেওয়ার ত্রিশটি  ছবি তিনি তার ফেইসবুকে দেন। যদি তার খারাপ উদ্দ্যেশ্য থাতকতো  তিনি  কি এ ছবিগুলো ফেইসবুকে আপলোড দিতেন।

 

এ বিষয়ে দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিতে আলীকদম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী মোঃ জামাল উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। একইভাবে আলীকদম থানার ওসি মোঃ রফিক উল্লাহর সাথে মুঠোফোনে  যোগাযোগ করলে তিনিও ফোন রিসিভ করেননি।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত