বাঘাইছড়িতে সহিংস ঘটনায় আনসার সদস্যর খোয়া যাওয়া রাইফেলটি পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার

Published: 22 Mar 2019   Friday   

রাঙামাটি বাঘাইছড়ি সহিংস ঘটনায় নিহত আনসার সদস্য মিহির দত্তের খোয়া যাওয়া থ্রিনটথ্রি রাইফেলটি শুক্রবার মারিশ্যা-দিঘিনালা সড়কের ১০ কিলোমিটার এলাকা থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেছে বাঘাইহাট জোনের সেনা সদস্যরা। জাতীয় মানবধিকার কমিশনের জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিচালকের নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন, আহত ও নিহতদের স্বজনদের সাথে কথা বলেছেন। 

 

পুলিশ জানায়, বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচনে ভোট গ্রহন শেষে ফেয়ার পথে দীঘিনালা-বাঘাইছড়ি সড়কের ৯ কিলোমিটার এলাকায় দুর্বৃত্তদের ব্রাশ ফায়ারে ঘটনার পর নিহত আনসার সদস্য মিহির দত্তের খোয়া যাওয়া অস্ত্রটি খোয়া যায়। শুক্রবার মারিশ্যা-দিঘিনালা সড়কের ১০ কিলো নামক স্থান থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেছেন বাঘাইহাট জোনের সেনা সদস্যরা।


বাঘাইছড়ি থানার ওসি এমএ মঞ্জুর খায়া যাওয়া থ্রিনটথ্রি রাইফেলটি উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গেল বৃহস্পতিবার মুঠোফোনে অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা বাঘাইছড়ি উপজেলা সহকারী রিটার্নিং অফিসার চৈতালী চাকমাকে হুমকি দেয়। এতে তার কাছ থেকে সন্ত্রাসীরা ৬ লাখ টাকা দাবী করেছে সন্ত্রাসীরা। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি এ ঘটনায় থানায় জিডি করেছন।


এই সহিংস ঘটনায় আহত বাঘাইছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রওশন আরা বেগম ও জো¯œা চাকমাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল সকালের দিকে খাগড়াছড়ি জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।


এদিকে, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চট্টগ্রাম বিভাগের পরিবচালক আল মাহামুদ ফাইজুল কবিরের নেতৃত্বে শুক্রবার দুপুরে বাঘাইছড়ি হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন । তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন ছাড়াও প্রত্যক্ষদর্শী ও বাঘাইছড়ি থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসাধীন আহতদের সঙ্গে কথা বলেন। এছাড়া তিনি বিকালে বাঘাইছড়ি স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে স্বাক্ষাত করেন।


পরিদর্শন শেষে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পরিবচালক আল মাহামুদ ফাইজুল কবির সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার আহত ও নির্বাচনে সংশ্লিষ্টদের সাথে ঘটনা নিয়ে কথা বার্তা বলেছেন। সবাই বলছে ঘটনাটি ঘটেছে নির্বাচনী বিরোধ নিয়ে। কারণ হামলাকারীদের টাগেট ছিল নির্বাচনী বক্স, সরঞ্জমাদী ও নির্বচনী কাজে সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ ও তাদের বহনকারী গাড়ি গুলোতে। এখানে নির্বাচন বজর্নকারীদের ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট থাকতে পারে বলে তিনি মত প্রকাশ করেছেন।

 

উল্লেখ্য, গেল ১৮মার্চ বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাচনে সাজেকের কংলাক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্র থেকে ভোট গ্রহন শেষে সদরে ফেয়ার পথে দীঘিনালা-বাঘাইছড়ি সড়কের ৯ মাইল এলাকায় একদল দুর্বৃত্ত ব্রাশ ফায়ার করে। এতে গুলিতে সহকারী পুলিং অফিসার ৭জন নিহত ও ২৬ জন আহত হন। এর মধ্যে গুরুত্বর আহত অবস্থায় ১১জনকে হেলিকপ্টারযোগে চট্টগ্রাম সামরিক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। রাতে গুরুত্বর আহত চট্টগ্রাম সন্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সহকারী পুলিং অফিসার ও নিউ লাইল্যাঘোনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ আবু তৈয়ব মারা যান। গত বুধবার রাতে পুলিশ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ৪০ থেকে ৫০ জন ব্যক্তিকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত