আমরা কেবল ফুল দিয়ে যাব আর আপনারা গুলি করে মারবেন এটা হয় না-দীপংকর তালুকদারএমপি

Published: 20 Mar 2019   Wednesday   

রাঙামাটির বিলাইছড়ি আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বাঘাইছড়িতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনকানী ৭ নির্বাচনী কর্মকর্তা হত্যাকান্ডে জড়িতদের দ্রুত খুঁজে বের করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা না হলে যে কোন সময় হরতাল-অবরোধের চেয়ে আরো কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়ার ঘোষনা দিয়েছেন রাঙামাটি আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার। 

 

তিনি জনসংহতি সমিতিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, হত্যা-হামলা করে আওয়ামীলীগকে নিশ্চিহৃ করা যাবে না, আমরা আপনাদের কেবল ফুল দিয়ে যাব আর আপনারা আমাদের গুলি করে মারবেন এটা হয় না। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্বাশীল বলে তাই বলে দুর্বল ভাববেন না।


বুধবার রাঙামাটিতে বিলাইছড়িতে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুরেশ কান্তি তঞ্চঙ্গ্যাকে সন্ত্রাসী কর্তৃক গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে ও বাঘাইছড়িতে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনকানী ৭জন কর্মকর্তার হত্যাকান্ডে জড়িতদের খুঁজে বের করার দাবীতে আয়োজিত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতির আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি এসব কথা বলেন।
সমাবেশে অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্যে দেন সাবেক মহিলা এমপি ফিরোজা বেগম চিনু, আওয়ালীগের সহ-সভাপতি নিখিল কুমার চাকমা, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুছা মাতব্বর, আওয়ামীলীগ নেতা অংশু ছাইন চৌধুরী, অংশুপ্রু চৌধুরী, রাঙামাটি পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান রোমান, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের হৃদয় রঞ্জন চাকমা। এর আগে রাঙামাটি পৌর চত্বর থেকে বিশাল বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরের সামনে গিয়ে শেষ হয়।


সমাবেশে নেতৃবৃন্দ পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের সাড়াষি অভিযান শুরু করার দাবী জানিয়ে বলেন, পাহাড়ে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের গুলিতে একের পর এ আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা প্রাণ হারাচ্ছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে পাহাড়ের পরিস্থিতি আরো অবনতি ঘটার আশংকা রযেছে। তাই সরকারকে অবিলম্বে এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার দাবী জানান।


দীপংকর তালুকদার এমপি পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের সাঁড়াশি অভিযান শুরু করার দাবী জানিয়ে বলেন, অস্ত্রধারীদের একটাই লক্ষে হচ্ছে সমাজে আতংক সৃষ্টি করা। এসব করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করা। জুরাছড়িতে অরবিনউ চাকমা, ঝর্না চাকমাকে আহত করা ও বিলাইছড়ি আওয়ামীলীগের সভাপতি সুরেশ তংঙ্গ্যাকে হত্যা করেছে তারা মনে করছে আওয়ামীলীগ পার্বত্যাঞ্চলে মাথা তুলে দাড়াতে পারবে না, আওয়ামীলীগ নিশ্চিহৃ হয়ে যাবে। কিন্তু জাতীয় নির্বাচনে সাধারণ মানুষ বিপুল ভোটে আওয়ামীলীগকে জয়ী করেছে।


তিনি আরো বলেন, সাধারন মানুষ আওয়ামীলীগকে ভালবাসে ও অস্ত্রধারীদের কাছ থেকে মুক্তি চায়। তাই এবার দশ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ ৫টি উপজেলায় ও আওয়ামীলীগের সমর্থনে ২টি উপজেলায় বিজয়ী হয়েছে। তাই এখন অস্ত্রধারীরা বুঝতে পেরেছে মানুষ হত্যা করে আওয়ামীলীগের জনপ্রিয়তা কমবে ও বিজয় ঠেকানো যাবে না। আওয়ামীলীগের নেতাকমীদের হত্যা করে আওয়াশীলীগকে নিশ্চিহৃত করা যাবে ভেবেছিল তারা বোকা স্বর্গে বসবাস করছে।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত