বান্দরবানে ইয়াবা ব্যবসায়ীর দ্বন্দ্বে হামলায় আহত ১০

Published: 11 Mar 2019   Monday   

বান্দরবানে ইয়াবা ব্যবসায়ীর দ্বন্দ্বে পাহাড়ী পাড়ায় হামলায় কমপক্ষে আহত ১০ আহত হয়েছে।  রোববার রাত ১১টার দিকে জেলা শহরের নিকটবর্তী লেমুঝিড়ি পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রোববার রাত ১১টার দিকে  লেমুঝিড়ি পাহাড়ী পাড়া এলাকায় গ্রাম পুলিশ মো: ইউসূফ ইউপি সদস্য ও পাড়া প্রধানকে জানানোর মাঝখানে রোহিঙ্গা মো: হামিদ ও মো: দুলুর সঙ্গে পাড়ার তিন যুবকের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। হাতাহাতির বিষয়টি ফোনে দুলু তার বন্ধু মাদুকে জানায়। সে আরো ১৫-২০জনকে সঙ্গে নিয়ে আসে। পরে তারা পাড়ার ঘুমন্ত নারী-পুরুষের উপর হামলা চালায়। এতে কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। হামলায় আহতরা হলেন, মংপ্রুঅং মারমা, মংতো মারমা, হ্লাসাঅং মারমা, বাসিংঅং মারমা, নু¤্রাচিং মারমা, ক্যহ্লাউ মারমাসহ ১০জন আহত হয়। এদের মধ্যে নু¤্রাচিং মারমা (৪০) জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ঘটনা শুনার পরপরই ঘটনাস্থলে ছুটে যান পৌর মেয়র। এই ঘটনায় গতকাল সোমবার পর্যন্ত পুলিশ এখনো কাউকে আটক করতে পারেনি। 

 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে আরো জানা গেছে, লেমুঝিড়ি পাড়ায় বসবাসকারী রোহিঙ্গা মো: হামিদ ও তার স্ত্রী ফাতেমা ইয়াবা ব্যবসায়ী। মো: ইয়াবা ব্যবসার পাশাপাশি ইয়াবা সেবনও করে। মো: দুলু। তার চট্টগ্রামে রাঙ্গুনীয়া থানায়। তার বিরুদ্ধে ইয়াবা ও অস্ত্র ব্যবসা, নারী, ডাকাতিসহ বেশ কিছু মামলা রয়েছে। এছাড়া মিলন বড়–য়া ও মাদু গাছ ব্যবসার পাশাপাশি ইয়াবা সেবনও করে অভিযোগ।

 

গ্রাম পুলিশ মো: ইউসূফ বলেন, রাত তখন সাড়ে দশটা। লেমুঝিড়ি পাড়ার রোহিঙ্গা মো: হামিদ ও তার স্ত্রী ফাতেমার মধ্যে ঝগড়া হয়। এই ফাকে বহিরাগত (চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় বাড়ী) মো: দুলুও স্বামী-স্ত্রী’র ঝগড়ায় অংশ নেয়। তাদের চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে যায় সে। কি বিষয় নিয়ে ঝগড়া জানতে চাইলে তার উপরও (গ্রাম পুলিশ) মারমুখি হয় মো: হামিদ ও মো: দুলু। সেখান থেকে সে পালিয়ে এসে বিষয়টি সদর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ও পাড়া কার্বারী (পাড়া প্রধান) বাথোয়াই মারমাকে জানায়।

 

সদর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ও পাড়া কার্বারী (পাড়া প্রধান) বাথোয়াই মারমা বলেন, রাত তখন ১১টার কাছাকাছি। চিৎকার, সোরগোল শুনা যাচ্ছিল। পাহাড়িরা বাঙ্গালীদের মারধর করছে এমন আওয়াজ শুনতে পাচ্ছিলাম। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি সেরকম কিছুই নয়। বিষয়টি বুঝে উঠার আগেই আরো কিছু স্থানীয় বাঙ্গালী এসে লাঠি সোটা নিয়ে এলাকাবাসির উপর হামলা চালায়। ভয়ে সেখান থেকে আমিও সরে আসি। হামলাকারীরা বাড়ির ভেতরে ঢুকে ঘুমন্ত নারী-পুরুষেরও লাঠি সোটা নিয়ে হামলা চালিয়েছে।

 

তিনি আরো বলেন, এ হামলায় আমি রোহিঙ্গা মো: হামিদ, মো: দুলু, মিলন বড়–য়া, মাদু, করিমসহ আরো কয়েকজনকে চিনতে পেরেছি।

 

হামলায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া নু¤্রাচিং মারমা (৪০) বলেন, গরমের কারণে আমি বাইরের বারান্দায় ঘুমিয়ে ছিলাম। মানুষের চিৎকার শুনে বিছনা থেকে উঠছিলাম। এমন সময় দুইজন লোকজন বাড়িতে ঢুকে লাঠি দিয়ে আমার ঘারে ও পিঠে আঘাত করে পালিয়ে যায়।

 

পৌর মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো: ইসলাম বেবী বলেন, ঘটনার বিষয়টি জানার পর পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। যারা হামলা করেছে তারা আমরা পৌছার আগে সরে পড়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ পাহারা বসানো হয়েছে।

 

সদর থানার সেকেন্ড অফিসার উপল চন্দ্র রায় বলেন, এই ঘটনায় এখনো আটক করা সম্ভব হয়নি। আটকের চেষ্টা চলছে। এই ঘটনায় এখনো কেউ মামলা করেনি।

--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত