নানিয়ারচর থেকে অপহৃত ১৮জন গ্রামবাসীকে উদ্ধারের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন

Published: 09 Jul 2018   Monday   

রাঙামাটির নানিয়ারচর ও বন্দুকভাঙ্গা থেকে অপহৃত ১৮ জন গ্রামবাসীকে অক্ষত অবস্থয় মুক্তির দাবীতে সোমবার ঘিলাছড়ি বাজারসহ তিনটি স্থানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে স্থানীয় লোকজন। এদিকে অপহৃত ১৮ জনের মধ্যে ৪ জনকে অপহরণকারীরা মুক্তি দিয়েছে বলে স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে।


সোমবার সকালের দিকে উবিগ্ন নানিয়ারচর এলাকাবাসী ব্যানারে পৃথক পৃথকভাবে রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কের পাশে ঘিলাছড়ি বাজার, বুয়ো আদাম ও জুরাছড়ি এলাকায় ঘন্টাব্যাপী মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধনে স্থানীয় নারী-পুরুষ অংশ নেন।


এদিকে একটি সূত্র জানিয়েছে দুর্বৃত্তরা অস্ত্রের মুখে ১৬ জন গ্রামবাসীকে অপহরনের পর রোববার রাতে ৪জনকে মুক্তিপণের বিনিময়ে অপহরণকারীরা মুক্তি দিয়েছে। এরা হলেন চন্দিলাল চাকমা, স্বপন চাকমা,রুদ্র সেন চাকমা ও শ্যামল কান্তি চাকমা। তবে তাদের কোথায় থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছে তা সঠিকভাবে জানা যায়নি। গেল ৩ মে নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শক্তিমান চাকমা দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হওয়ার পর নির্বাচন কমিশন উপ-নির্বাচনের ঘোসনা দেয়। আগামী ২৫ জুলাই নানিয়ারচর উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ উপ-নির্বাচনে জাতীয় রাজনৈতিক দল আওয়ামীলী ও বিএনপির কোন প্রার্থী দেযনি। তবে আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল ইউপিডিএফ ও এমএন লারমা গ্রুপের সমর্থিত প্রার্থী দিয়েছে। এই উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আঞ্চলিক রাজিৈনতক দলগুলোর মধ্যে অপহরনের ঘটতে পারে বলে ধারনা। তবে অপর একটি সূত্র বলছে এলাকায় ধার্য্যকৃত গণ চাদাঁর টাকা পরিশোধ না করায় তাদেরকে অপহরণ করা হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।


এদিকে নব্য মুখোশ বাহিনী প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব পরান ধন চাকমার স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, ১৮ গ্রামবাসীকে অপহরনের প্রতিবাদে ও মুক্তির দাবীতে মঙ্গলবার নানিয়ারচর উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা সড়ক ও নৌপথ অবরোধের ডাক দিয়েছে নব্য মুখোশ বাহিনী প্রতিরোধ কমিটি। বিবৃতিতে সকাল সন্ধ্যা সড়ক ও নৌ পথ অবরোধ সফল করতে উপজেলার যান-বাহন শ্রমিক ও মালিকদের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করেছেন।


নানিয়ারচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল লতিফ জানান অপহরনের বিষয়ে তার জানা নেই এবং অপহরনের বিষয়ে কেউই অভিযোগ করতে আসেনি পুলিশের কাছে।


উল্লেখ্য, গেল রোববার নানিয়ারচর উপজেলা থেকে ১৬ জন ও বুধবার রাঙামাটির সদও উপজেলার বন্দুকভাঙ্গা ইউনিয়ন থেকে ২ জন গ্রামবাসীকে দুবর্ৃৃত্তরা অপহরণ করে। এ অপহরণ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফের পক্ষ থেকে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস ও গণতান্ত্রিক ইউপিডিএফকে দায়ী করলেও তারা অস্বীকার করেছে।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : [email protected]
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত