পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে রাঙামাটিতে নাগরিক সমাজের সমাবেশ

Published: 13 May 2018   Sunday   

পাহাড় থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান আরো জোরদার করাসহ স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টির দাবিতে রোববার রাঙামাটিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে সচেতন নাগরিক সমাজ।

 

সচেতন নাগরিক সমাজের ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল রাঙামাটি শহরের পৌর চত্বর থেকে শুরু হয়ে নিউ মার্কেট চত্বরে গিয়ে সমাবেশে করে। সন্ত্রাস বিরোধী এ বিক্ষোভে ব্যবসায়ী ও দোকান কর্মচারী, পরিবহন মালিক শ্রমিকরা যোগ দেন। পরে শহরের নিউ মাকের্ট চত্বরে আয়োজিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য ও সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। অন্যান্যর মধ্যে বক্তব্যে দেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ ফিরোজা বেগম চিনু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মুছা মাতব্বর,রাঙামাটি চেম্বার অফ কমার্সের বেলায়েত হোসেন ভূইয়া প্রমুখ। সমাবেশ শেষে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।


সমাবেশে বক্তারা বলেন অবৈধ অস্ত্রধারীরা প্রতিনিয়ত খুন, অপহরণ, চাদাঁবাজী করে পাহাড়কে অশান্ত ও অস্থিতিশীল করে তুলেছে। অবৈধ অস্ত্রধারীরা নিজেরাই এখন মারামারি করছে। এদের সন্ত্রাসের কাছে জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের জীবন কারো নিরাপদ নয়। 

 

বক্তারা অবিলম্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার,অবৈধ অস্ত্রধারীদের চিহিৃত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা ও মৃত্যুর মিছিল বন্ধের দাবী জানান।

 

ফিরোজা বেগম চিনু এমপি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনাানিতে সাধারন মানুষের নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে। পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা না গেলে পার্বত্য শান্তি চুক্তি পুর্ণ বাস্তবায়ন করা সম্ভব না। আগে অস্ত্র উদ্ধার  ও আপনারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুন তাহলে আমরা দেখবো তখন শান্তি চুক্তি পূর্নাঙ্গ বাস্তবায়ন করা সম্ভব কিনা। যদিও চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী, তারপও বলতে চাই স্বাভাবিক জীবনে আপনারা ফিরে আসুন। এই সুন্দর পার্বত্য চট্টগ্রামকে একটি সুন্দর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বজায় থাকুক এই পার্বত্য চট্টগ্রামে,অাপনাদের ভূমিকাও থাকুক আমাদের সাথে সন্মিলিত। তাহলে অাপনাদের ন্যায় সঙ্গত যে কোনো আন্দোলেনে  অতীতেও ছিলাম এখনো আসি ভবিষ্যতেও থাকবো।

 

তিনি চাদাবাজদের প্রতিহত করার আহ্বান জানিয়ে আরো বলেন, সবাই যদি ঐক্যবদ্ধ হয়ে আজ থেকে সন্ত্রাসীদের এক টাকারও চাদা দেবো না। অবশ্যই সন্ত্রাসীরা আমাদের কাছ থেকে চাদা নিতে পারবে না। আর যদি বলি  চাদা দিয়ে ব্যবসা করি যা হওয়ার হোক এই মানসিকতা আপনাদের ভেতর থাকে তাহলে কখনো চাদাবাজি এখান থেকে বন্ধ করা যাবে না। প্রশাসনও চাদাবাজি বন্ধ করতে পারবে না।  চাদাবাজি বন্ধ করতে হবে আমাদের সদৃঢ় অবস্থানের মাধ্যমে।  


সভাপতির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সাড়াঁশি অভিযান আরো জোরদার করার জন্য সরকারের প্রতি দাবী জানিয়ে বলেন,আইন-শৃংখলা বাহিনী পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী,চাদাবাজদের পাকড়াও করছে ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারসহ অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তবে এই বিরাজমান পরিস্থিতিতে তা যথেষ্ট নয়, এ প্রক্রিয়া আরো বেশী বেগবান ও ত্বরাম্বিত করতে হবে।


তিনি আরো বলেন, অতীতে দেখা গেছে সন্মিলিতভাবে একটা দাবীতে পাহাড়ী-বাঙালী একটা পশ্চাতে গিয়ে দাড়াঁয় তখন উগ্র সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়ানো হয়, মৌলবাদী গোষ্ঠীগুলো ধর্ম ও সমাজকে বিভক্ত করে থাকে। ঠিক তেমনি করে পার্বত্য চট্টগ্রামে আমাদের এই আন্দোলনকে এবং আইন-শৃখলা বাহিনী ও প্রশাসনের তৎপরতাকে ব্যাহত করতে অপ্রচার চালানো হচ্ছে। আর এই অপপ্রচার সফল না হলে সাম্প্রদায়িকতা বিষবাষ্প ছড়ায়। যাতে সন্মিলিত ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনকে ব্যর্থ করে দিতে পারে। তাই যে কোন মূল্য সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে যাতে কেউই এই বিভক্তি সৃষ্টি করতে না  পারে তার জন্য সবাইকে সর্তক থাকার জন্য তিনি আহ্বান জানান।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : [email protected]
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত