সংঘাত, হানাহানি, রক্তপাত নয়, মৈত্রী ভাব নিয়ে আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে-পার্বত্য মন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি

Published: 15 Jan 2021   Friday   

সংঘাত নয়, হানাহানি নয়, রক্তপাত নয় মৈত্রী ভাবনিযে আগামী প্রজন্মকে এগিয়ে যাওয়ার আহবান জানিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর ঊশৈংসিং এমপি। তিনি শান্তি সম্প্রতি ঐক্য থাকলে কোন সমস্যা বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারবে না বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

 

মন্ত্রী আরো বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চল শান্তি ও সম্প্রতির জায়গা বঙ্গবন্ধু অ্যাডভেঞ্চার উৎসব আরো একবার প্রমান করেছে। পার্বত্য অঞ্চলের অ্যাডভেঞ্চার যুক্ত টুরিজমকে বিকশিত করতে বঙ্গবন্ধু অ্যাডভেঞ্চার উৎসব ভুমিকা রাখবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।


শুক্রবার (১৫ জানুয়ারী) রাঙামাটি চিংলা মং চৌধুরী মারি ষ্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপল্েয ১১ থেকে ১৫ জানুয়ারি পাঁচদিন ব্যাপী বঙ্গবন্ধু অ্যাডভেঞ্চার উৎসবের পুরষ্কার বিতরনী ও সমাপনী অনুষ্টানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব একথা বলেন।


এর আগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি। করা হয়েছিলো।


পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড আয়োজনে ও বাংলাদেশ অ্যাডভেঞ্চার ফাউন্ডেশনের সহায়তায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ অ্যাডভেঞ্চার ফাউন্ডেশনে সভাপতি নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য কমিশনের সচিব সুদত্ত বিকাশ চাকমা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংশুই প্রু চৌধুরী, জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ, জেলা পুলিশ সুপার মীর মোদ্দাছ্ছের হোসেন। স্বাগত বক্তব্যে দেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল আলম নিজামী। অনুষ্ঠান শেষে অংশ গ্রহনকারী ১শজনের মাঝে সার্টিফিকেট বিতরণ করা হয়। পরে ফানুস বাতি, আতশবাজি প্রদর্শন ও মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।


আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় পর্যায়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে দেশব্যাপী বিভিন্ন আয়োজনের অংশ হিসেবে পার্বত্যাঞ্চলের জনগনের অংশ গ্রহন নিশ্চিত করা, মুজিব বর্ষ উদযাপনে ভিন্ন মাত্রা যোগ করা, পার্বত্য চট্টগ্রামে সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যকে দেশীয় ও আর্ন্তজাতিকভাবে উপস্থাপন, রোমাঞ্চ প্রিয় তরুনদের উৎসাহ প্রদানের মাধ্যমে বিশ^ব্যাপী অ্যাডভেঞ্চারমূলক কার্যক্রমে তাদের অংশগ্রহন বৃদ্ধিতে উদ্বুদ্ধকরণ, অ্যাডভেঞ্চার কার্যক্রমের মাধ্যমে তরুনদের মাঝে সাহস ও দেশ প্রেম জাগ্রত করা, চ্যালেঞ্জিং বিভিন্ন ইভেন্টে তরুনদের অংশ গ্রহনের মাধ্যমে আতœপ্রত্যায়ী ও উদ্যামী যুব সমাজ গড়ে তোলা, তরুনদের মধ্যে শৃংখলা,পরোপকার,সহনশীলতাসহ বিভিন্ন মানবিক গুনের বিকাশ ঘটানো, পার্বত্য চট্টগ্রামে পর্যটনের অপার সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো ও এ অঞ্চলে অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিজমকে জনপ্রিয় করে তোলার লক্ষে এই বঙ্গবন্ধু অ্যাডভেঞ্চার উৎসবের আয়োজন।


এই অ্যাডভেঞ্চার উৎসবে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ১শ জন প্রতিযোগি অংশ নিয়েছেন। তার মধ্যে পার্বত্য তিন জেলা থেকে ৫০ জন প্রতিযোগি অংশ নেন। এর মধ্যে নারী প্রতিযোগি রয়েছেন ৪৩ জন। ১শ জন প্রতিযোগির মধ্যে রাঙামাটি জেলায় ৪০ জন, বান্দরবান জেলায় ৩০ ও খাগড়াছড়ি জেলায় ৩০ জন প্রতিযোগি বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ নেন। প্রতিযোগিতার মধ্য ট্রেইল রান ও পেলিং, কানিওনিং , কায়াকিং, ট্রেকিং, রোপ কোর্স, কেভ ডিসকভারি, হাইকিং ও ট্রেইল রান, ট্রেজার হান্ট, ক্যাম্প ওরিয়েননটশন, হাইকিং, ফুরমোন পাহাড় ট্রেকিংসহ ইত্যাদি।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর ঊশৈসিং এমপি বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পার্বত্য চট্টগ্রাম এখন সম্প্রীতি ও মৈত্রিময় অঞ্চল। এক সময় পার্বত্য চট্টগ্রামকে হেয় চোখে দেখা হতো, এখন পার্বত্য চট্টগ্রামকে হেয়ভাবে দেখার সুযোগ নেই।


পার্বত্য মন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে ৯৭ সালের ২রা ডিসেম্বর শান্তি চুক্তি সম্পাদনের পর থেকে অশান্ত পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তির সুবাতাস বইতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই দেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। সারা দেশের মত পার্বত্য চট্টগ্রামে ও খেলাধুলাসহ প্রতিটি সেক্টরে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে।


উল্লেখ্য,গেল ১১ জানুয়ারী রাঙামাটি চিং হা মং চৌধুরী মারী ষ্টেডিয়ামে ৫ দিন ব্যাপী বঙ্গবন্ধু অ্যাডভেঞ্চার উৎসবের উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ড.একে আব্দুল মোমেন এমপি।
--হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

 

উপদেষ্টা সম্পাদক : সুনীল কান্তি দে
সম্পাদক : দিশারি চাকমা
মোহাম্মদীয়া মার্কেট
কাটা পাহাড় লেন, বনরুপা
রাঙামাটি পার্বত্য জেলা।
ইমেইল : info@hillbd24.com
সকল স্বত্ব hillbd24.com কর্তৃক সংরক্ষিত