• Hillbd newsletter page
  • Hillbd rss page
  • Hillbd twitter page
  • Hillbd facebook page
সর্বশেষ
রামগড়ে তথ্য অফিসের প্রেস ব্রিফিং                    রামগড়ে স্বাস্থ্য বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত                    রামগড়ে অভিযানে ভারতীয় মদ ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে বিজিবি                    মহালছড়িতে ৩ গ্রামবাসীকে অপহরণের নিন্দা ও প্রতিবাদ ইউপিডিএফের                    রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাসিক সভা                    জুরাছড়িতে জেলা পরিষদের নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ                    রাঙামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের বাঘাইছড়িতে বন্যা কবলিত স্থান পরিদর্শন                    ঈদের ছুটিতে খাগড়াছড়ির বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে দর্শনার্থীদের ভীড়                    বাঘাইছড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস`র এক সদস্য নিহত                    রাঙামাটি-খাগড়াছড়ি সড়কে সাময়িকভাবে ভারী যানবাহন বন্ধ                    বান্দরবানের লামায় এক কিশোরীর লাশ উদ্ধার                    রাঙামাটিতে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য্যরে মধ্যে দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত                    পানছড়িতে দুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস’র এক কর্মী নিহত                    খাগড়াছড়িতে মাসব্যাপী আম মেলা শুরু হয়েছে                    ঢাবি’র মেধাবী ছাত্র সুমন চাকমার জীবন বাঁচাতে সহায়তার কামনা                    জেলা পরিষদের বিলাইছড়িতে দুঃস্থদের মাঝে ঈদ বস্ত্র বিতরণ                    জেলা পরিষদের বরকলে বন্যা দুর্গতদের নগদ অর্থ ও বস্ত্র বিতরণ                    লংগদুতে দুুর্বৃত্তদের গুলিতে এমএন লারমা গ্রুপের জেএসএস’র ১ কর্মী নিহত,আহত ১                    বাঘাইছড়িতে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত,পানিতে ডুবে ১জনের মৃত্যু                    মগবানের টর্নেডোতে ৩টি বাড়ী বিধস্ত,গাছগাছালির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি                    রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ থেকে কোতয়ালী থানায় টিভি প্রদান                    
 

লামার ফাইতং ইউনিয়নে ১৩ টি ইট ভাটায় দেদারছে পোড়ানো হচ্ছে বনাঞ্চল কাঠ!

ক্যমুই অং মারমা : হিলবিডি টোয়েন্টিফোর ডটকম
Published: 21 Jan 2015   Wednesday

বান্দরবানের লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নে সংরক্ষিত বনাঞ্চলে মধ্যে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে ১৩টি ইটভাটা। এসব ইট ভাটায় বৈধ কোন লাইসেন্স না থাকলেও ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন(নিয়ন্ত্রণ) আইন- ২০১৩ কে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে নির্বিঘ্নে। আর এতে জ্বালানী হিসেবে প্রতিদিন ব্যবহার করা হচ্ছে হাজার হাজার মন শিশু গাছ। ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন পরিবেশবিদ ও স্থানীয়রা। স্থানীয়দের অভিযোগ, বছরের পর বছর এসব ইট ভাটার কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও নির্বিকার স্থানীয় প্রশাসন। সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে জানা যায়, বিগত ২০১২সালে বান্দরবানের লামা উপজেলার দূর্গম ফাইতং ইউনিয়নে তিনটি বিশাল বিশাল পাহাড় কেটে তৈরি করা হয় ইট ভাটা। এভাবে পাহাড় কেটে গড়ে তোলা অবৈধ ইট ভাটায় বছরের পর বছর ধরে বনের কাঠ সংগ্রহ করে ব্যবহার করা হয় জ্বালানি হিসেবে। শুধুমাত্র ফাইতংএ এক ইউনিয়নে রয়েছে অন্তত ১৩টি ইটভাটা। এসব ভাটায় পরিবেশ অধিদপ্তরের কোন বৈধ কাগজপত্র নেই। স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন, এ ইউনিয়নে বনাঞ্চল বলতে অবশিষ্ট আর কিছুই নেই। বনাঞ্চলের কাঠ ইট ভাটার জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার করার কারনে ন্যাড়া হয়ে গেছে এক সময়ের ঘন বনে সমৃদ্ধ পাহাড়গুলো। প্রতিনিয়ত ভাটায় অতিরিক্ত কাঠ বোঝাই ট্রাক চলাচল ও ইট টানার কারনে ইউনিয়নের অধিকাংশ পিচঢালা সড়ক নষ্ট হয়ে গেছে। গ্রীস্ম -বর্ষায় এই পথ ধরে চলাচলে স্থানীয় আদিবাসীদের যেন দূর্ভোগের শেষ নেই। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পার্বত্য জেলায় ২০০৯ সাল থেকে ইটভাটা স্থাপন ও পরিচালনার ওপর সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এসব এলাকায় ইটভাটা স্থাপন না করার ব্যাপারে রয়েছে উচ্চ আদালতের নির্দেশনাও। তাছাড়া বন ও কৃষি বিভাগের অনাপত্তি ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্রের প্রয়োজন হলেও এসব ছাড়ায় চলছে ভাটাগুলো। স্থানীয় বাসিন্দা মংব্রাচিং মার্মা অভিযোগ করে জানান, ভাটার মালিকরা স্থানীয় প্রশাসনের লোকজনকে ম্যানেজ করে রেখেছেন। প্রাকৃতিক পরিবেশ বলতে আর কিছুই নেই, সব শেষ। এসব ইট ভাটার বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া না হলে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা কঠিন হয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা করছেন তিনি। উল্লেখ্য,ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন(নিয়ন্ত্রণ) আইন- ২০১৩ এ উল্লেখ রয়েছে,লাইসেন্স ছাড়া ইটভাটা পরিচালনা করলে এক বছরের দন্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, আবাসিক-সংরক্ষিত-বাণিজ্যিক-বনভূমি-জলাভূমিসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা এলাকায় ইটভাটা স্থাপন করলে এক বছর কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানার ও জ্বালানি হিসেবে কাঠের ব্যবহারে তিন বছরের কারাদন্ড এবং তিন লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হওয়ার বিধান রাখা হয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইট ভাটাগুলোর ২০ থেকে ৩০ গজের মধ্যেই চিবাতলী নোয়াপাড়া ও ছিবাতলী আদিবাসী পাড়ার অবস্থান থাকলেও আইন অমান্য করে আশেপাশে গড়ে উঠেছে অসংখ্য ইট ভাটা। ভাটার শ্রমিকদের তথ্য মতে, একটি ভাটায় দৈনিক গড়ে ৩০০ মণের উপর কাঠের প্রয়োজন হয়। ১৩টি ইট ভাটায় প্রতিদিন পুড়ছে ৩ হাজার ৯শ মন কাঠ। এতে ধ্বংস হযে যাচ্ছে ভাটার আশপাশের বনাঞ্চল। ফলে একসময় ঘন বনে সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক বন পরিণত হয়েছে ন্যাড়া পাহাড়ে। এই ব্যাপারে লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের একটি ইট ভাটার মালিক বেলাল জানান, ইটভাটাগুলোর লাইসেন্স নেই। প্রশাসনকে ম্যানেজ করে কোনভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিবেশ অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক শহীদুল আলম বলেন, এই ভাটাগুলোর কোন ছাড়পত্র নেই। জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে শীগ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে। পার্বত্য চট্টগ্রাম বন ও ভূমি সংরক্ষণ অধিকার আন্দোলনে বান্দরবানের চেয়ারপার্সন জুয়ামলিয়ান আমলাই বলেন, বান্দরবানে বছরের পর বছর প্রাকৃতিক বনের কাঠ যেভাবে ধ্বংস করে চলেছে। তাতে জলবায়ু পরিবর্তনের নীতিবাচক প্রভাবে আমরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবো। লামা বন বিভাগীয় কর্মকর্তা শহিদুল আলম চৌধুরী বলেন, আমাদের লোকবল সংকট। তাই উপজেলা প্রশাসন ও আর্মি ক্যাম্পের সহযোগীতা চেয়েছি যাতে সুষ্ঠ অভিযান পরিচালনা করা যায়। লামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামসুন নাহার সুমি বলেন, অবৈধ ভাটাগুলোকে তো বৈধ করা যাবে না, পূর্বেও অভিযান চালানো হয়েছে। আবারও ভাটাগুলোর অভিযান তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
–হিলবিডি২৪/সম্পাদনা/সিআর.

সংশ্লিষ্ট খবর:
এই বিভাগের সর্বশেষ
আর্কাইভ